শিক্ষার্থীদের শ্লোগানের ভাষার সমাজতত্ব


শিক্ষার্থীদের শ্লোগানের ভাষার সমাজতত্ব

গৌতম দাস

০৪ আগস্ট ২০১৮, ০০:০২

https://wp.me/p1sCvy-2ti

 

 

শিক্ষার্থীদের স্লোগানের ভাষা – ছবি : ফেবু থেকে সংগৃহীত

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে যে স্লোগান উচ্চারিত হচ্ছে, তা নিয়ে চার দিকে তুমুল অলোচনা চলছে। এ স্লোগানগুলোতে দেশের পরিস্থিতির নানা চিত্র উঠে এসেছে। গত চার দিনের চলমান রাস্তার আন্দোলনে ছাত্রছাত্রীদের দেয়া স্লোগানের ভাষা কী অশ্লীল, প্রশ্ন তুলেছেন কেউ কেউ। এক কথায় বললে এর প্রথম জবাব হবে ‘কে আপনি’, প্রশ্নটি তুলতেছেন। আপনি যদি ক্ষমতাসীন দানব ক্ষমতার মানে দানব এস্টাবলিসমেন্টের পক্ষের লোক হন কিংবা জেনে – নাজেনে এই দানব ক্ষমতাকে সম্মতিদাতা হয়ে থাকেন, তাহলে আপনার অভিযোগ হবে শিক্ষার্থীদের ভাষা ‘অশ্লীল’। আপনি দানব ক্ষমতার সুবিধাভোগী হলেও বলবেন, এটা ‘অশ্লীল’ ভাষা। ক্ষমতাসীনদের সাগরেদ হলে ‘এথিক্যাল পুলিশের’ ভূমিকায় নামতে ইচ্ছে করবে আপনার কিংবা নেমেই যাবেন। কারণ আপনি হারতেছেন – লুজিং। চ্যালেঞ্জড হয়েছেন – এরই দিশাহারা প্রতিক্রিয়া এটা!

আসলে এটাকে শ্লীল-অশ্লীলের বিষয় না বলে মানে ‘নৈতিকতার পুলিশগিরি’ পজিশন না নিয়ে বরং এটা ফরমাল বনাম ইনফরমাল ভাষার তর্ক – এভাবে বর্ণনা অর্থে সেটি বলাই সম্ভবত সঠিক হবে। স্ল্যাং (slang) বা অশ্লীল ভাষা সব সমাজে থাকে, চর্চাও হয় সমানে। [স্ল্যাংয়ের ডিকশনারি অর্থও আরও সহজ – very casual speech or writing।] মানে স্যুট-কোর্ট থুয়ে হাফ প্যান্ট পড়ে কথা বলা। এমন সমাজ দুনিয়ায় পাওয়া যাবে না যেখানকার ভাষায় স্ল্যাং শব্দ নাই বা এই শব্দের চর্চা নাই। তবে স্বভাবতই এই চর্চা হয় মূলত সমাজের ইনফরমাল পকেটগুলোতে – চায়ের দোকানে, ক্লাব আড্ডায়, সমবয়সী ও বন্ধু মহলে। তবে ফরমাল জায়গাগুলোর ভাষা যেহেতু আলাদা হয়, তাই সেখানে এই ভাষা দেখা যায় না। কিন্তু একটা কথা মানতে হবে, ভাষার মুখ্য কাজটা হল মনের কথা ঠিক ঠিক-ঠিকভাবে বাইরে আনা, যেটাকে আমরা বলি এক্সপ্রেশন বা প্রকাশ ঘটানো। লক্ষ করবেন, ইনফরমাল শব্দ মানে যার ভিতর স্ল্যাং শব্দ অন্তর্ভুক্ত – এই শব্দ অন্য যেকোন কিছু চেয়ে খুবই সফল ও সাবলীলভাবে এক্সপ্রেশন ঘটায়, অন্তত ফরমাল ভাষার তুলনায় এবং ওর চেয়ে সহজে। তুলনায় এই চমৎকার প্রকাশগুণ, এটাই ইনফরমাল ভাষা কদর পাওয়ার একটি অন্যতম কারণ। আমাদের মধ্যে খুব কম মানুষই প্রকাশগুণসম্পন্ন হয়, তাই ইনফরমাল আবহের সুযোগ পেলেই তা নিয়ে আমরা এই ভাষায় নিজেদের প্রকাশ করার সুযোগ নিয়ে নেই। মূল কারণ, সহজে এখানে নিজের মনের ঠিক ঠিক ভাব তুলে ধরা বা বাইরে আনা যায়।

তবে মনে রাখতে হবে, মূলত যেমন ধরেন রেগে গেলে বা রাগে, ক্ষোভে অথবা দীর্ঘদিনের চাপা থাকা অবস্থার মন অসহ্য হয়ে পড়লে সাধারণত আমাদের প্রকাশভঙ্গির শব্দ ইনফরমাল হয়ে যায়। অর্থাৎ ফরমালিটির কন্ট্রোল তখন অকার্যকর হয়। মনে হতে থাকে, রুলিং পাওয়ার বা শাসকসমাজ আমাকে আমল করছে না, আমার ব্যথা বুঝছে না, বুঝতেই চাচ্ছে না; তাহলে আমি কেন একপক্ষীয় তাকে আমল করার দায় নেব! ফলে ইনফরমাল শব্দ ব্যবহারকারির মানসিক অবস্থা থাকে এরকম। আর আমরা সবাই জীবনের নানান চড়াই-উতরাইয়ের স্তরে পরে কখন না কখনও ইনফরমাল স্তরে যাবার সদুযোগ নিয়ে নিজেকে হাল্কা অনুভব করার সুযোগ নিয়েই থাকি।

তার মানে দাঁড়াল ফরমাল-ইনফরমাল ভাষা বলে সমাজে একটা ফারাক, সব দেশ-সমাজে আছে আর তা বজায় বা ধরে রাখা হয় বা থাকে। ফরমাল সমাজের আড়ালে থেকে থাকা ভাষা আসলে ‘দোস্ত-বন্ধু সার্কেলের ভাষা;’ যাকে ইনফরমাল ভাষা বলছি তা সফল আয়ু নিয়ে টিকে থাকে, ফরমাল ভাষার পাশাপাশি হেঁটে চলে।

তা না হয় বোঝা গেল, কিন্তু এর মানে কি এটা যে এখন থেকে দেশে ফরমাল-ইনফরমাল ভাষার আলাদা আলাদা জগৎ, ভাষার ফারাক এগুলো কি এখন থেকে উঠে যাবে? এই আন্দোলনে যারা বেশির ভাগ বা সংখ্যায় ভারী এরা মূলত ১৬-১৭ বছরের কিশোর বা তরুণ। এই ১৬-১৭ বছরের তরুণ, এরা ইনফরমাল ভাষা অবলীলায় ব্যবহার করছে – এর মানে কী এখন থেকে বাসার ড্রয়িংরুমে, ডাইনিং টেবিলে কিংবা ক্লাসরুমে এরা নিয়মিত ইনফরমাল ভাষায়ই কথা বলা শুরু করবে? পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের ভাষা কি সেই ইঙ্গিত দিচ্ছে? না, একেবারেই না। আসলে ঘটনা খুবই সিম্পল। আগে ফরমাল-ইনফরমাল ভাষার আলাদা আলাদা জগৎ যতটা আপনা-আপনিই বজায় রাখা যেত বা থাকত, এখন সেখানে একটা ব্যত্যয় ঘটেছে। তা ঘটিয়েছে সোস্যাল মিডিয়া। সোস্যাল মিডিয়ার কারণে ইনফরমাল জগৎ ও এর ততপরতা ফরমাল দুনিয়ায় হাজির হয়ে গেছে। অর্থাৎ ইনফরমাল ভাষা তাদের বন্ধুমহল ছেড়ে মিডিয়ার কল্যাণে সবার সামনে চলে এসেছে। আর তাতেই এত তর্ক উঠেছে। খেয়াল করলে দেখব, ফেসবুকই এ ধরনের ইনফরমাল ভাষার প্ল্যাকার্ড বা এর ছবি সবার কাছে প্রকাশ করে দিচ্ছে, ফেসবুক এর প্রধান সোর্স। পাশাপাশি তুলনা করলে দেখব, আমাদের মেন স্ট্রিম বা প্রচলিত মিডিয়া এমনকি টিভি মিডিয়ারও যাদের কাছে এমন প্ল্যাকার্ড ও এর ছবির কথা অজানা থাকার কথা নয়। কিন্তু তাদের মিডিয়ায় ইনফরমাল ভাষার খবর, এটা অনুপস্থিত। তারা কিন্তু ফরমাল জগতে একে প্রবেশাধিকার দেয়নি।

তাহলে এই ফরমাল-ইনফরমাল জগৎ ও ভাষার যে ভেদ এখন দেখা যাচ্ছে তাতে কিছু ছিদ্র দেখা গেছে, এই হল কথা। এখন এই ছিদ্র দেখা দেয়ায় আগামীতে এর প্রতিক্রিয়া কী হতে পারে? প্রথমত, এই ভাষার ফরমাল-ইনফরমাল ভেদ কখনই উঠে যাবে না। যদিও ঠিক যেমন, অন্তত মা জানে তার সন্তান সিগারেট খায়, কিন্তু তা নিয়ে নাড়াচাড়া করার কায়দাও কেমন নরম-গরমে রাখতে হয় তা মায়েরা জানে। বাড়াবাড়ি করে না। এরকম হয়ে থেকে যাবে। ফলে হয়তো সেভাবে সোস্যাল মিডিয়ায় এটা জানাজানি ঘটা অবস্থাতেই তা থাকবে, কিন্তু আবার এই তথ্য ফরমাল সমাজ উপেক্ষা করতেও থাকবে, ফরমাল সমাজে তা আনবে না। আর সম্ভবত এটা নির্ধারিত হবে অভিভাবক মা-বাবারা সন্তানদের এই আন্দোলনের প্রতি কী মনোভাব পোষণ করছে ও করবে তা দিয়ে।

এখন পর্যন্ত যা প্রকাশিত তাতে মনে করার কারণ আছে যে, এটা কেবল ১৬-১৭ বছরের তরুণদের আন্দোলনই নয় এর পাশাপাশি এটা তাদের মা-বাবারও সম্মতির আন্দোলন। বিশেষ করে মায়েরাই মূলত সন্তানদের স্কুল-কলেজে পৌঁছে দিতে আসে সেই মায়েদেরও সম্মতিতে সন্তানদের আন্দোলন। এর একটা বড় কারণ সড়ক ও যানবাহনের অনিরাপত্তা। এমনিতেও তারা চিনায় দিচ্ছে যে নিরাপদ সড়ক – এটাই তাদের আন্দোলনের ইস্যু। তাই আমরা ধরে নিতে পারি যে এই মায়েদের পূর্ণ সম্মতি আছে পড়ুয়াদের আন্দোলনের প্রতি। অন্তত নিজেদের অভিজ্ঞতা থেকে বলা যায়, আশির দশকেও তখনকার আন্দোলনে এমনটা কোনো অভিভাবককে পাওয়া যেত না যে সন্তানের আন্দোলনে অংশ নেয়াকে সম্মতি দিত। কিন্তু এখনকার পড়ুয়াদের আন্দোলনে অভিভাবকদের পূর্ণ সম্মতি আছে, এর বড় প্রমাণ হল গত চার দিনে তরুণেরা তারা লাগাতার মাঠে উপস্থিত থাকছে; বাসায় বাধা তেমন পায়নি শুধু তাই না, মায়েরা নিজেই পরের দিনও ছেলেমেয়েদের স্কুলে আনছে বা তাদের আসতে দিচ্ছে। সম্ভাব্য এর মূল কারণ হল, চরম অনিরাপদ বেপরোয়া যানবাহন আর এই নৈরাজ্যকে গ্রহণযোগ্যতা দিয়েছে এমন ‘পাবলিক জবাবদিহিতাহীন’ সরকার ও এর ক্ষমতা- এসবের  প্রতি মায়েদের গভীর অনাস্থা। বেপরোয়া এই ব্যবস্থা রাজীব ও মীমকে হত্যা আর সাথে আরো দশজনকে মারাত্মকভাবে পিষে মেরে ফেলার অবস্থায় আহত করেছে। কিন্তু এই বীভৎসতার অভিজ্ঞতা কেবল শিক্ষার্থীদের নয়, এটা কেবল রাজীব বা মিমেরও নয়, রাজীব অথবা মিমের ভেতর দিয়ে আসলে প্রতিটি শিক্ষার্থী ও  অনিরাপদ সড়ক তাদের নিরাপত্তা দিতে আসা মায়েরা প্রত্যেকে নিজেকেই দেখতে পেয়েছেন। ঘাতক বেপরোয়া পরিবহনের সরাসরি শিকার এখন মা এবং সন্তানেরা। তাদের সাথে রাজীব-মিমের ফারাক হল এই যে, এরা দু’জন পরিবহন নৈরাজ্যে হত্যার শিকার হয়েছে; আর এই মা-সন্তানেরা এক্সিডেন্টলি মারা যায়নি, তাই বেঁচে আছে। ফলে চরম নৈরাজ্যের বিপরীতে একটা সুস্থ সিস্টেমের এক নির্বাহী সরকার পরিচালনার অবস্থায় দেশকে ফিরিয়ে আনার স্বপ্ন দেখতে মা বা সন্তান কাউকেই দাওয়াত দিতে হয়নি। এটি ভুক্তভোগীদের স্বতঃস্ফূর্ত ক্ষোভের প্রকাশ। এ কারণে সোস্যাল মিডিয়ায় দেখা গেছে অনেক মা-বাবা নিজের সন্তানকে নিজেই মাঠে আইডেন্টিফাই করে বাহবা দিতে। অর্থাৎ পড়ুয়া সন্তানের সাথে সমান সরাসরি ভুক্তভোগী বলেই অভিভাবকেরা এই আন্দোলনে সম্মতি দিয়ে সংশ্লিষ্ট হয়ে আছে।

এই আন্দোলনকারী কারা? অনেকে এদেরকে স্কুলপড়ুয়া বাচ্চা ছেলে বলে সম্বোধন করছেন। এটা সম্ভবত অসতর্কতা অথবা আন্দোলনকারীদের প্রতি সহানুভূতি বোঝাতে ‘বাচ্চা ছেলে’ কথা যতটা না তাদের বয়স বোঝানোর শব্দ, এর চেয়ে বেশি তাদের প্রতি সহানুভূতিসূচক শব্দ। তবুও সেটি যাই হোক, বয়সের বিচারে এদের বেশির ভাগেরই বয়স ১৬-১৭ বছর। অর্থাৎ টিনএজের শেষার্ধে। এই বয়সের মূল বৈশিষ্ট্য হল, পরিবার ও সমাজকে তারা এটা জানান দিতে চায় যে, “আমি এখন স্বাধীনভাবে চিন্তা করতে পারি, আমার চিন্তা করার ক্ষমতা যথেষ্ট বিকশিত হয়েছে, মনে বুঝাবুঝির ফ্যাকাল্টি ডেভেলপ করে গিয়েছে  ও ন্যূনতম পরিপক্বতা এসেছে। ফলে প্রতিটি বিষয় আমি কিভাবে চাই অথবা দেখতে চাই তা আমাকে আমার মত করে দেখতে ও তাকে প্রকাশ করতে দিতে হবে; আর সেই সাথে অন্যদের তা আমল করতে হবে। আপনার আইডিয়ার তলে আমাকে চেপে দেয়ার সুযোগ আর নাই”।

এরপর ১৮ বছর হয়ে গেলে এ ভাবটাকেই তো আইনসিদ্ধ মতামত জানানোর মত পোক্ত বলে মানা হয়, আমরা মেনে নেই যে তারা রাজনীতি ও নির্বাচনে ভোট বা মতামত দেয়ার যোগ্য বিবেচিত। এ জন্য উল্টো এক কমন ট্রেন্ড দেখা যায় এদের মধ্যে তা হল, তাদের মতামত প্রকাশ করতে না দিলে বা এদের ওপর চাপিয়ে দেয়া অবস্থান নিলে এরা ভয়ঙ্কর বিদ্রোহ করে, এদের প্রতিক্রিয়া হয়ে দাঁড়ায় জীবন দিয়ে দেওয়ার মত মরিয়া। এরা নিজেদের আমল করানো, তাদের কথা শোনানোর জন্য কোনো ২৫ বা ৩৫ বছর বয়সী মানুষের চেয়েও বহু দূর যেতে রাজি থাকে। তবে ঠাণ্ডামাথায় বুঝিয়ে বলেই একমাত্র যদি তাদের মানানো যায় বা যেতে পারে।

এসব কারণে তাদের দাবি খুবই চিন্তা করে বলা যার মূল সুর হল অনিরাপদ সড়কের তাদের আপত্তি ও অভিযোগ, সড়ক নিরাপত্তা তাদের মূল ইস্যু। দানব ক্ষমতার নৈরাজ্যের এক প্রকাশ পরিবহন নৈরাজ্য – এটা তাদের সব ক্ষোভের কেন্দ্র। পরিবহন মালিক-শ্রমিকেরা আজ সড়কে আহত নিজের কোনো বাসযাত্রীকে চিকিৎসা দেয়ার ঝামেলা এড়াতে নদীতে ছুড়ে ফেলে মৃত্যু নিশ্চিত করেছে – পরিবহন মালিক-শ্রমিকেরা আজ এই ভয়ংকর অবিশ্বাস্য অমানুষের জায়গায় চলে গেছে। কেউ আর মানুষের গুণ স্বভাবে নেই। এমনকি এ ঘটনা প্রকাশ হওয়ার পর সরকার-মালিক-শ্রমিক নেতা কারো দিক থেকে কোনো পদক্ষেপ দেখা যায়নি। বরং নতুন করে আবার দায় এড়ানোর বুদ্ধি আঁটছে তারা।

এক কথায় বললে ১৯৮৩ সালে পরিবহন নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ (BRTA) গঠনের সময় থেকেই পরিবহন মালিক-শ্রমিকেরা সোজাসাপ্টা চেয়েছে – তারা লাইসেন্স কিনে নিতে পারে এমন ব্যবস্থা চায়। কোন ট্রেনিং শেষে যোগ্যতা পরীক্ষার প্রমাণ দেয়া নয়, সরাসরি কাগজ কেনা এমন একটা লাইসেন্সিং-অনুমোদন ব্যবস্থা যেন কায়েম হয়। আর সেকাজে প্রগতি বা অ-প্রগতিবাদী পরিবহণ নেতারা সকলেই এই ব্যবস্থায় সায় দিয়েছে এই অজুহাতে যে ট্রেনিং-পরীক্ষার যে ব্যবস্থাকে লাইসেন্সিং প্রক্রিয়া বলে এটা নাকি ‘আমলাতান্ত্রিক’। কারণ আমলাতন্ত্রের বিরুদ্ধে গালি দিতে পারা চরম বিপ্লবীপনা মানা হয়। ফলে তারা এই আমলাতন্ত্রের অজুহাতের আড়ালে সকলেই চেয়েছে পয়সা দিয়ে কেনা যায় এমন এক লাইসেন্সিং ব্যবস্থা কায়েম হোক। আর আমলারাও এমন ব্যবস্থা হলে সহজেই পরিবহণের কাঁচা পয়সার ভাগ মিলবে বলে এতে সামিল হয়েছিল। এভাবে পয়সা দিয়ে কিনে নেয়ার এই ব্যবস্থায় তারা সরকারকেও শামিল করে নিয়েছিল। সেটাই এখন ভয়াবহ দানব মহীরুহ হয়েছে। তাই গরু-ছাগল চিনলেই লাইসেন্স দিতে হবে- এটা মন্ত্রী এখন প্রকাশ্যেই দাবি করছেন। অথচ মূল ব্যাপারটা হল, লাইসেন্স বা অনুমোদন যদি কিনেই নেয়া যায়, এরপর তা কি আর ‘লাইসেন্স’ বলে বিবেচ্য হতে পারে? না সেটা লাইসেন্স থাকে? সেটা তো তখন আর পরীক্ষা-নিরীক্ষালব্ধ দলিল অর্থে লাইসেন্স নয়, এক টুকরো কাগজ মাত্র। এটা চিন্তা করা অবস্থায় সরকার-মালিক-শ্রমিকেরা কেউ নেই। আসলে সরকার-মালিক-শ্রমিকের মিলিত এক সিন্ডিকেট বিআরটিএ’র মাধ্যমে মানুষ মারার ‘লাইসেন্স’ কেনাবেচা করছে মাত্র। আর অন্যদিকে পরিবহনের এই মন্ত্রী-মালিক-শ্রমিকদের গুণ্ডামির এরা এক কোটারি ক্ষমতা, এটাকে দানব সরকার নিজের ক্ষমতায় থাকার ক্ষেত্রে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করা যাবে বলে তাদের মধ্যে এই দেয়া-নেয়ার সম্পর্কের সিন্ডিকেট, সে আরো চরম বেপরোয়া। অর্থাৎ সরকার মালিক-শ্রমিকদের এই সিন্ডিকেট প্রমাণ করেছে বিআরটিএ আসলে একেবারেই অপ্রয়োজনীয় এক সংগঠন। কার্যকর কোনো রাষ্ট্র-সরকার ও বিআরটিএ সব কিছু একেবারেই বাস্তবত অপ্রয়োজনীয়, খামোখা। এই জায়গা থেকে দেখলে বোঝা যায় টিনএজ ছাত্রছাত্রীদের আন্দোলন আমাদের বলতে চাচ্ছে, তাদের আন্দোলনের লক্ষ্য আসলে নতুন রাষ্ট্র-সরকারের পুনঃপ্রতিষ্ঠা ও পুনর্গঠন।

তাহলে ব্যাপারটা শুধু পরিবহন নৈরাজ্য নয়, খোদ রাষ্ট্র ও সরকারই এক নৈরাজ্যের দানব, প্রধান পৃষ্ঠপোষক। এরই প্রধান প্রতিভূ যাকে মাঠের লড়াকু তরুণেরা সম্মুখ মোকাবেলা করছে, তারা হলো পুলিশ। পুলিশ হয়ে উঠেছে নৈরাজ্যের দানবীয় প্রতীক।

ফলে তরুণদের স্লোগানের টার্গেট মূলত পুলিশ ও ক্ষমতা। কিন্তু এই পুলিশ ও ক্ষমতা এটা নষ্টা, বিচ্যুত ও অধঃপতিত। “পুলিশ তুই কোন চ্যাট@র বা@…”। অর্থাৎ তুই আমার কাছে, আমার চোখে তুচ্ছ – এটাই আন্দোলনকারীদের বক্তব্য-বয়াত্নের সার কথাটা। সারকথায়, তাই একে তুচ্ছজ্ঞান করে দেয়া। কারণ, নষ্টা ক্ষমতা, despotic বা ‘দাগী’ ক্ষমতা সে তো পশমের মতোই তুচ্ছ। এই বয়ান হাজির করাই তরুণদের আন্দোলনের কাজ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

চরম রাগ-ক্ষোভে বিক্ষুব্ধ হয়ে কাউকে তুচ্ছ জ্ঞান করে দেয়া- সে কিছুই না, তাকে সে মানে না পাত্তা দেয় না; এটা বোঝানোর ক্ষেত্রে ইনফরমাল ভাষা- এক্সপ্রেশন হিসেবে অতুলনীয়, আনপ্যারালাল। তাই পুলিশ সম্পর্কিত সব স্নোগানই তাদের তুচ্ছ জ্ঞান করার ভাষা। ইনফরমাল ভাষা যাকে বলি। এখন আপনি দানব ক্ষমতার বেনিফিসারি হলে ওর সাথে থাকলে, আত্মীয় হলে তো এই ভাষার বয়ান নিজের স্বার্থে আঘাত খেয়ে প্রতিক্রিয়ায় নিচা দেখাতে একে ‘অশ্লীল’ বলতে চাইবেনই। তাহলে দেখা যাচ্ছে শেষ বিচারে শ্লীল-অশ্লীল ব্যাপারটা পৌঁছাল যে, এটা আসলে ক্ষমতার প্রশ্ন। আপনি দানব ক্ষমতার আত্মীয় হলে দানব ক্ষমতার চ্যালেঞ্জকারীকে অশ্লীলই বলবেন।

একটা ১৬-১৭ বছরের ছেলে বা মেয়েও ওপর পুলিশ লাঠি তুলছে, পেটাচ্ছে বা ভয় দেখাচ্ছে – এমন অনেক ছবি মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। কিন্তু সব ছবিতেই দেখবেন তরুণদের ভিতর কোনো ভয় পাওয়ার চিহ্ন নেই, সটান দাঁড়িয়ে আছে, একটুও হেলেনি, মার থেকে বাঁচার চেষ্টা নেই। অথচ ঐ উদ্যত লাঠির বাড়ি পড়লে মাথা দুভাগ হবার সম্ভাবনা। তবু সে ভয়ডর কারও ভিতর কাজ করছে মনে হয় না। কেউ একজন ১৬-১৭ বছরের ছেলে বা মেয়ে – এরই হুবহু প্রতীক হল এ ছবিগুলো। সে বলতে চায়, সে স্বাধীন চিন্তা করতে সক্ষম। ফলে তাকেও আমল দিতে হবে। তার কথা শুনতে হবে।

গ্রীক এক প্রবাদ আছে, যা আপনি কাউকে দিবার যোগ্যতা রাখেন না মুরোদ নাই তা কারও থেকে কেড়ে নিবারও আপনি কেউ না, আপনার সে অধিকার নাই। সুর্যের আলো আপনি কাউকে দিতে পারেন না, সে যোগ্য আমরা কেউ নই। তাহলে কারও সুর্যের আলো পাওয়ার পথে আপনি বাধা হতে পারেন না। সে অধিকারই নাই। মীমের বাবা-মার কথাই ধরা যাক। তারা নিম্ন মধ্যবিত্ত, বড় জোর ২৫ হাজার টাকার মধ্যে নিরন্তর কষ্ট করে সংসারে মাসের সব খরচ চালাতে বাধ্য হন এমন পরিবার। আশা করার মত তাদের কিছু নাই। কিন্তু এধরণের জীবন নিয়ে মানুষ বেচে থাকে কেন? বাকি জীবনে এর পরিবর্তনের কোন সম্ভাবনা নাই। তাহলে কী আছে যা তাদের বাঁচিয়ে রাখে? আত্মহত্যা করতে দেয় না, বাঁচতে আগ্রহ যোগায়? সেই উসিলাটা কী? ঘনিষ্ট হয়ে বসে এদের যদি জিজ্ঞাসা করেন তাহলে শুনবেন “বাচ্চাদের মুখের দিকে চেয়ে বেচে আছি”। এক স্বপ্ন আছে যা তাদেরকে বাঁচিয়ে রাখে, বেঁচে থাকতে প্রেরণা দেয়। অর্থাৎ মা-বাবারা বুঝে গেছে তাদের প্রজন্ম গেছে। কিন্তু পরের প্রজন্মের সময়ে জীবনমান অবস্থা বদলের স্বার্থে নিজের প্রজন্মকে বলি দিতে রাজি আছে।  যেমন আশা করে থাকে যে মীম পড়ালেখা করে বড় হলে একটা (সরকারি) চাকরি পেলে তাদের চির দুঃখের অবসানে তাদের জীবনযাত্রার মান এক নতুন স্তরে উতীর্ণ হতে পারে। কিন্তু মীমের মৃত্যু তাদের পাচজনের পরিবারের সবস্বপ্ন ভেঙ্গে চুড়মার করে দিয়েছে। জীবন ও এতদিনের দাতচেপে ধরে করা কষ্ট সব এখন অর্থহীন হয়ে গেছে। রাষ্ট্র তাদেরকে একটা নুন্যতম অভাবপুরণের জীবন দিতে পারে নাই। তাহলে রাষ্ট্র-সরকারের কী অধিকার আছে তাদের স্বপ্ন ছিনিয়ে নিবার? কিন্তু এর জবাব দিবার কেউ নাই। কারণ মীমের পরিবারের সংগ্রাম আর তাদের দিক থেকে জীবনকে একবার দেখারও কেউ নাই! আমরা এমন সমাজ-রাষ্ট্রে বসবাস করছি।

তাহলে আগামীতে কী হবে? প্রধানমন্ত্রী ও মন্ত্রীরা কী বুঝবেন বা বুঝেছেন- তারা কার মুখোমুখি হয়েছেন, কার সাথে ডিল করছেন? এর জবাব সম্ভবত হতাশাব্যঞ্জক হবে! তারা বুঝবেনই না; অথচ  কী শক্তি ছিল অদমনীয় ১৬-১৭ বছরের এই তরুণদের ভিতর। কাজেই মাননীয় ক্ষমতা- আপনি পরাজিতই হবেন। আপনারা নো বডি, তুচ্ছ! তাহলে আমরা কি একটা ম্যাসাকার দেখতে যাচ্ছি। এক কঠিন সময়ের প্রান্তে আমরা।

[এই রচনাটা লিখতে যাদের ফিল্ড রিপোর্ট আমাকে খুবই সাহায্য করেছে, বিশেষ করে আলনোলনরত মা-সন্তানদের তথ্য আর অথবা রাজীব ও মীমের পারিবারিক তথ্য – এসবগুলোকে আমার ইমাজিনেশনে নিতে পেরেছি, তা নিয়েছি দৈনিক প্রথম আলো থেকে। তাদের রিপোর্টিং সত্যিই ছিল প্রফেশনাল যা আমাকে খুবই সহায়তা করেছে। তারা জানে তারা কি করছে। আর আমার দিক থেকে, কারণ সমাজতত্বের আলাপ তুলতে গেলে যে ধরণের নুন্যতম তথ্য দরকার হয় তা একমাত্র প্রথম আলোতেই ছিল। তাদের সকলকে তাই আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই। ]

লেখক : রাজনৈতিক বিশ্লেষক
goutamdas1958@hotmail.com

 

[এই লেখাটা এর আগে গত ০২ আগস্ট ২০১৮ দৈনিক নয়াদিগন্ত পত্রিকার অনলাইনে (প্রিন্টে পরের দিন) “শিক্ষার্থীদের স্লোগানের ভাষা”  – এই শিরোনামে ছাপা হয়েছিল। পরবর্তিতে সে লেখাটাই এখানে  আরও নতুন তথ্যসহ বহু আপডেট করা হয়েছে।  ফলে  সেটা নতুন করে সংযোজিত ও এডিটেড এক সম্পুর্ণ নতুন ভার্সান হিসাবে এখানে ছাপা হল। ]

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s