মোদীর অর্থনীতিতে ধ্স আর লুকানো গেল না

মোদীর অর্থনীতিতে ধ্স আর লুকানো গেল না

গৌতম দাস

০২ ডিসেম্বর ২০১৯, ০০:০৫

https://wp.me/p1sCvy-2Os

ভারতের অর্থনীতির দুরবস্থা আর লুকিয়ে রাখা গেল না। এবছর মোদীর দ্বিতীয়বারের সরকার ক্ষমতায় বসার পর দ্বিতীয়-ত্রৈমাসিক (জুলাই-সেপ্টেম্বর ২০১৯) রিপোর্ট প্রকাশিত হয়েছে গত ২৯ নভেম্বর। এবারও জিডিপি আরো অর্ধশতাংশ কম। অর্থাৎ গত কোয়ার্টারে ছিল ৫ শতাংশ, সেই জিডিপি এবার হয়েছে আরো কমে, ৪.৫ শতাংশ। অর্থাৎ এটা আগের তিন মাসের চেয়েও আরো কম।

গত ২০১৬ সাল থেকে তথ্য লুকিয়ে বা আড়াল করে না হলে, গণনার ভিত্তিবছর বদলানো বা অন্য কোনো ছলে আড়ালে দিয়ে অর্থনৈতিক পরিসংখ্যান নিয়ে মোদী সরকার যে খেলা করে আসছিল  সেসব এবার আর অস্বীকার করার বা লুকিয়ে ফেলে পালাবার সুযোগ অনেক কিছুই আর থাকল না। তবে শেষে এসে এখন তর্কটা হল, জিডিপি ৪.৫ শতাংশে এসে ঠেকেছে, সেটা তো লুকানোর নাই। তাই এখন বিরোধীদের সাথে তর্কের পয়েন্ট হল, অর্থনীতি ধীরগতি বা শ্লথগতির এটা স্বীকার করে নিয়েও মোদীর অর্থমন্ত্রী গলাবাজির করে বলছে এটা এখনও অর্থনৈতিক “মন্দা” [recession] বলে ডাকা যাবে না। ভারতের পার্লামেন্টে এই তর্কই চলছে এখন।

রাষ্ট্রের অর্থনীতির দিকে নজর বা খেয়াল রাখার মূল কাজটা হল “মনিটরিং”। উৎপাদনের সামগ্রিক এবং ঘুঁটিনাটিতেও তথ্য-পরিসংখ্যানে অর্থনীতি কোথায় কমল না বাড়ল এবিষয়গুলো যেকোন রাষ্ট্রের অর্থনীতিতে নিয়মিত চোখে চোখ রাখা হয়। এই চোখ রাখা বা মনিটরিং ডাটা সংগ্রহের ব্যাপারটার সাধারণ স্ট্যান্ডার্ড হল প্রতি বছর এটা চারবার মানে প্রতি তিন মাস শেষের ডাটা সংগ্রহ করে পুরো হিসাবনিকাশ গণনা প্রক্রিয়া শেষ করা হয় একবার করে, এভাবে বছরে চারবার বা চার কোয়ার্টারে। আর প্রতি বছর এই চারবারের গড়টাই আবার বছরের জিডিপির মান বলে প্রকাশিত হয়। গতকাল ২৯ নভেম্বর ভারতের দ্বিতীয় ত্রৈমাসিক বা কোয়ার্টারের (জুলাই-সেপ্টেম্বর ২০১৯) জিডিপির হিসাব প্রকাশিত হয়েছে। চলতি অর্থবছরের সেকেন্ড কোয়ার্টারের জিডিপি ৪.৫ শতাংশ। কিন্তু এর তাৎপর্য কী?

প্রথমত, বাইরে প্রকাশ্যে যা দেখতে পাওয়া যাচ্ছে এই অর্থে, কথাটা হল, এক বিরাট ধরনের হতাশা ছেয়ে বসেছে ভারতের  অর্থনৈতিক জীবনে, সর্বত্র। ইংরেজি দ্যা প্রিন্ট পত্রিকা থেকে টুকে আনা কিছু তথ্য দেখা যাচ্ছে, জুলাই-সেপ্টেম্বর ২০১৯ এই কোয়ার্টারে ম্যানুফ্যাকচারিং কমেছে ১ শতাংশ, কৃষিতে বেড়েছে মাত্র আড়াই শতাংশ হারে, স্থাপনা-কাঠামো ৩.৩ শতাংশ বেড়েছে ও বিদ্যুৎ বেড়েছে ৩.৬ শতাংশ, ইত্যাদি। [Data released by the National Statistical Office showed that while manufacturing contracted by 1 per cent in the July-September quarter, agriculture grew by 2.1 per cent, construction by 3.3 per cent and electricity generation by 3.6 per cent.]।

এছাড়া ইন্ডিয়া রেটিং ও রিসার্চ প্রতিষ্ঠানের প্রধান ইকোনমিস্ট সুনীল কুমার সিনহার উদ্ধৃতি দিতে একই পত্রিকা লিখেছে, এবারের জিডিপি এমন কমে যাবার পিছনে তিনি দুটা কারণ উল্লেখ করেন – “কেনাকাটা কমিয়ে দেয়া মানে ভোক্তাদের ব্যয়সংকোচন আর রপ্তানিতে ধবস নামা”  […slowdown in GDP growth is largely on account of the slump in consumption expenditure and de-growth in export]।

এসব আবার অবশ্যই হঠাৎ করে ঘটে নাই। যেমন কারখানা উৎপাদনের মধ্যে গত তিন মাস ধরে প্রাইভেট কার উতপাদনের কোম্পানিগুলোর অবিক্রীত গাড়ির তথ্য ব্যাপকভাবে প্রকাশিত হয়ে আসছিল বানের জলের মত। অবিক্রীত গাড়ির সংখ্যা সেখানে দেখিয়েছিল বছরের উৎপাদিত গাড়ি্র ৪৫ শতাংশই  অবিক্রীত।

আসলে ভারতের জিডিপির পরিসংখ্যানের হিসাবে এর ধারাবাহিক পতনের শুরু হতে দেখা যাচ্ছে, ২০১৮ সালের মার্চের পর থেকে। মানে ২০১৭-১৮ অর্থবছরের শেষ কোয়ার্টার জানুয়ারি-মার্চ -এর পর থেকে, সেবারই ছিল শেষ উঁচু জিডিপি ৮.১ শতাংশ। এর পর থেকে গত দেড় বছর ধরে চলছে টানাভাবে ওই শেষ উঁচু জিডিপিরই পতনের কাল। এটাই ধারাবাহিকভাবে প্রতি কোয়ার্টারে কমতে কমতে এসে এবার হয়েছে সাড়ে চার শতাংশ। যেটা এর আগের কোয়ার্টারে (এপ্রিল-জুন ২০১৯) ভারতের জিডিপি ছিল ৫ শতাংশ।

জিডিপিকে আবার উপমহাদেশের ভিত্তিতে ভাগ করে দেখে এর ভিন্ন কিছু তাৎপর্য বুঝা যেতে পারে। যেমন, এখানে বলে রাখা যায়, এশিয়ান জিডিপি হিসাবে সাড়ে চার শতাংশ হওয়ার অর্থ এটা খারাপ জোনের মধ্যে পড়ে যাওয়া, মনে করা হয়। সে হিসাবে পাঁচ বা এর বেশি শতাংশকে ভাল জিডিপির শুরু মনে করা হয়। আবার তুলনায় ইউরোপ-আমেরিকা্‌ সেখানে কোন রাষ্ট্রের চার শতাংশ জিডিপি হয়ে যাওয়া মানে এটা খুবই ভাল উন্নতি। সাধারণত ইউরোপ-আমেরিকা এই জোনের দেশ এক-দুই শতাংশের জিডিপিতেই আটকে থাকে। মূল কারণ পুরনো কলোনি মালিক ইউরোপীয় রাষ্ট্রের অর্থনীতি বা উন্নত অর্থনীতির আমেরিকা বলতে এরা আসলে পুর্ণ-সম্পৃক্ত বা স্যাচুরেটেড [saturated] অর্থনীতি বলে মানা হয়। তাই এটা যা আছে তাতে টিকে থাকতে পারা সেটাকেই অনেক সাফল্য মনে করা হয়।

তুলনায় এশিয়ান যেকোনো অর্থনীতি মানেই  কয়েক শত বছর ধরে থেকে উদ্বৃত্ত সম্পদ বা পুঁজি পাচার হয়েই চলে গেছে এমন অর্থনীতিই হবে সেটা। এই কারণে কলোনিমুক্ত স্বাধীন হওয়া পরেও একালে এসব দেশে অবকাঠামো ও উৎপাদনে বিনিয়োগের ব্যাপক পিছিয়ে থাকা ঘাটতি মেটাতে বিদেশী পুঁজি ধারে নিয়ে তা সুদসহ ফেরত দিয়েও এসব রাষ্ট্রের অনেক আগানো-উন্নতির পটেনশিয়াল থাকে। এরই থ্রেসহোল্ড জিডিপি মানে ন্যূনতম পা-রাখার জায়গা হল ৫ শতাংশ জিডিপি। আবার দেশ যোগ্য দল ও নেতৃত্ব পেলে এরা এর চেয়েও অনেক উপরে উঠতে পারে। কিন্তু এসব দেশের জিডিপিকে ন্যূনতম আট শতাংশের উপরে না নিতে পারলে বিরাট পরিবর্তনের স্বপ্ন আশা করা, স্বপ্ন দেখা অবান্তর। আবার ঠিকমতো কাজে লাগাতে পারলে যেমন চীন, ১৯৯০-২০০৭ এই সময়কালে অনেক বারই ডাবল ডিজিট বা ১৩.৬ শতাংশ পর্যন্ত নিজের জিডিপি উঠিয়েছিল।

আবার ওদিকে আরেক ফেনোমেনা দেখা দিয়েছে একালে। দেশের অর্থনৈতিক পরিসংখ্যানগত ফ্যাক্টস ফিগারের মধ্যে  বাইরে থেকে হাত ঢুকিয়ে দেয়া –  বিভিন্ন দেশে আজকাল এটা অনেক বেশি হতে দেখা যাচ্ছে। এভাবে আজকাল তথ্য-পরিসংখ্যান সাজিয়ে-বানিয়ে নেয়া ও ভাল পরিসংখ্যানের দাবি করা হচ্ছে অনেক বেশি। অনেকে এমন দাবি উঠে আসা কেন – এর মূল কারণ হিসাবে – ভোট বা পপুলার রাজনীতিকে দায়ী করেন। মানে এই প্রবক্তারা বলতে চায় রাজনীতিতে ‘পপুলারিটি’ বা ভোটের রাজনীতি আজকাল এতই প্রধান ফ্যাক্টর হয়ে উঠেছে। অর্থাৎ এরা বলতে চাচ্ছে আগে এটা এত বড় বিষয় ছিল না। এই প্রবক্তারা যেন বলতে চায়, আগে পাবলিক অনেক রয়েসয়ে ভোটের সিদ্ধান্ত নিত। আর এখন হয়েছে উল্টো। এই কথাটা সত্য যে, খারাপ পারফরম্যান্স বা খারাপ অর্থনীতিতেও ওর তথ্য ঠিকঠাক লুকিয়ে রেখে অনেক শাসক অনেকদূর তথ্য আড়াল করে কাটিয়ে দিতে পারে ও পারতে দেখা যাচ্ছে।

অবশ্য আমাদের নিজের দেশে ভোট না হলেও এখানে পপুলারিটি মানে মিথ্যা যেকোনো কিছু পরিসংখ্যান দাবি করার সুযোগ কত বেশি- সেটা বুঝতে হবে। তবে আমাদের দেশের মতই ভারতেও তথ্য-পরিসংখ্যান লুকানোর একটা ভালো উপায় হল, গণনার ভিত্তিবছর বদলে দেয়া। অর্থনীতির পরিসংখ্যান গণনা প্রক্রিয়ায় বিরাট অংশটাই তুলনামূলকভাবে বলা হয় এমন ভাষ্য। অর্থাৎ কোন কথা বলার সময় তাতে কোন একটা বছরকে ভিত্তি বছর ধরে এর ধারণা তৈরি করে কথা বলা হয়। কিন্তু এখনকার প্রবল প্রচলন হল ভিত্তি বছর কিভাবে কোন বছরকে ধরলে আমার আমলের পরিসংখ্যানগুলো বড় ফিগার দেখাবে, উজ্জ্বল্ হয়ে উঠবে সেভাবে ভিত্তি বছর বদলে নেয়া হচ্ছে। এমন মিথ্যা বলার সহায়ক পরিসংখ্যানবিদও আজকাল অনেক বেশি পাওয়া যাচ্ছে। এটা আমাদের দেশে হচ্ছে, মনমোহনের আমলে অভিযোগ ছিল, মোদীর আমলে সে অভিযোগ আরো বেশি।

গতকালের (৩০ নভেম্বর) আনন্দবাজার,  জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতির এক অধ্যাপিকা জয়তী ঘোষের বরাতে মনে করাচ্ছে, “মোদী জমানায় জিডিপি মাপার পদ্ধতি বদলে দেওয়া হয়। সেই পদ্ধতি নিয়েই বিতর্ক রয়েছে”।  পত্রিকা আরও লিখেছে, “বস্তুত, মোদী সরকারের প্রাক্তন মুখ্য আর্থিক উপদেষ্টা অরবিন্দ সুব্রহ্মণ্যনই বলেছিলেন, নতুন পদ্ধতিতে জিডিপি মাপায় তা ২ থেকে ২.৫ শতাংশ অঙ্ক বেশি হচ্ছে। তাঁর কথা মানলে আদতে আর্থিক বৃদ্ধির হার ২ শতাংশের ঘরে নেমে এসেছে”। অর্থাৎ পরশু যে জিডিপি ফিগার ৪.৫% বলে দেখানো হয়েছে এটাও আগের প্রকৃত হিসাবে এখন এটা মাত্র ২%।

ভারত চেম্বারের সভাপতি সীতারাম শর্মার আশঙ্কা, কেন্দ্র ব্যবস্থা না-নিলে দেশকে মন্দার হাত থেকে বাঁচানো কঠিন। তাঁর দাবি, ‘‘আর্থিক হাল ফেরানোর কোনও ব্যবস্থাই ফল দেয়নি। চাহিদা বাড়ানোর ব্যবস্থা চাই।’’ অনেকেরই আশঙ্কা, বৃদ্ধির হার আর যদি না-ও কমে, তবু বছর দুয়েকের মধ্যে তার মাথা তোলার সম্ভাবনা কম।

সে যাই হোক, ২০১৪ সালে ক্ষমতায় আসার পর নরেন্দ্র মোদীকে অর্থনীতিতে প্রথম নেতি প্রতিক্রিয়ার মুখোমুখি হতে হয় ‘ডিমনিটাইজেশন’ [demonetization] নিয়ে। মানে প্রচলিত ভাষায় যাকে সরকারের “নোট বাতিলের” সিদ্ধান্ত বলা হয় সেটা।  মানে ২০১৬ সালের ৮ নভেম্বর সন্ধ্যায় হঠাত, মোদীর পাঁচশ ও হাজার রুপির নোট বাতিলের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেছলেন সেকথাই বলা হচ্ছে। এটা ছিল অর্থনীতিতে নেতি প্রতিক্রিয়া-পরিস্থিতিকে যেন মোদীর নিজেই ডেকে আনার এক কাজ।

যেন এতে মোদীর সরকার বিপুল পরিমাণ কালো টাকা ধরে ফেলতে পারবেন, আর তাতে একক হাতে বিরাট ছক্কা মেরে দেবেনই, এই মিথ্যা লোভে পড়েছিলেন তিনি। কিন্তু এই নোট বাতিলের সিদ্ধান্ত থেকে ভারতের অর্থনীতি উলটা বিরাট ধাক্কা খেয়েছিল। বিরাট ইতিবাচক ফলাফলের আশা অথবা অর্থনীতি চাঙ্গা হয়ে উঠবে ইত্যাদি এমন কিছু আশা ছড়ানোর চেষ্টা করেছিলেন মোদী।  কিন্তু না, এমন কোনো কিছুই আসেনি, এমন কোনো কিছু মোদির কপালে জোটেনি। উলটো ভারতের অর্থনীতি প্রবলভাবে ধাক্কা খেয়েছিল। সেই থেকে মোদী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে আর কখনো তার কোনো অর্থনৈতিক সাফল্য আছে এ কথা বলতে পাবলিকলি সামনে যান নাই।

‘ইনফরমাল সেক্টর’ [informal sector] বলে একটা কথা আছে। অনেক ঝকমারি কথা মনে হলেও আসলে তা নয়। ফরমাল সেক্টর কথাটার সোজা অর্থ হল, একটা গ্রামে যদি একটা গাড়ির কারখানা বসিয়ে ধরা যাক ৬০০ লোককে কারখানার ভেতরে শ্রমিক হিসেবে নিয়োগ দেয়া যায় তবে ওই এলাকায় ঐ শ্রমিকদের একেকজন পিছু আরও ছয়জন করে মোটামুটি প্রায় আরো ছত্রিশ শত লোকে বিভিন্ন কাজ পাবার অবস্থা হবে, এটা ধরা হয়। এতে ৬০০ জনের ফরমাল চাকরি হলে, মানে তাদের জন্য পরিকল্পিতভাবে কাজ সৃষ্টি করলে এতে অপরিকল্পিতভাবে আর বাকিরা (ছত্রিশ শত) ইনফরমাল শ্রমিক হিসেবে কাজ পাবে।  যদিও এরা কারখানার ভিতরে কাজ পাবে না। বাইরে নানা সহায়ক পেশা যোগাড় করে নিবে। এদের মধ্যে বাদামভাজা বেচতে আসা অথবা শ্রমিকদের ভাত রান্নার লোক, কিংবা চা দোকানি, সবজি বা মুদি দোকানি বা হকার ইত্যাদি – এরা এমন বিভিন্ন পেশার লোক হবে।

মোদির ডিমনিটাইজেশনের ঘোষণায় সয়লাব করা সবচেয়ে বড় নেতি প্রভাব হল, মোদীর নোট বাতিলের ঘোষণায় কাজ হারিয়ে ‘বলি’ হয়ে গিয়েছিল ভারতের এই ইনফরমাল সেক্টর। ভারতের শিল্পে অগ্রসর রাজ্য বলতে মুম্বাই, গুজরাটকে ধরা হয়। এ কথার আরেক প্রমাণ হল, ২০১৬ সালের আগে এখানের নিম্ন মধ্যবিত্তের হাতে  আয়-ইনকাম ভাল হওয়াতে কিছু বাড়তি সঞ্চয়ও আসত। আর তা আসত বলেই সেই সূত্রে কলকাতার স্বর্ণকাররা প্রতি ওস্তাদ সাথে তার ছয় সগরেদকে নিয়ে মুম্বাই বা গুজরাটে সেখানে দোকান দিয়ে বসতে দেখা যেত।

এতে স্বর্ণকার ওস্তাদ-সাগরেদরা নিয়মিত কলকাতায় পরিবারে টাকা পাঠাতে পারত। মানে সব পক্ষেরই আয়-ইনকাম নিয়ে বেচে থাকা একটু ভাল হচ্ছিল। কিন্তু হঠাত সবই ডুবে গিয়েছিল মোদীর ঐ ‘নোট বাতিলে’। কারণ সবারই আয়-ইনকাম এলোমেলো হয়ে যায় এতে। বিশেষ করে বাড়তি কাজ বা আয়ের সুযোগ যেখানে ছিল সেখানে সব, সবার আগে ছেঁটে পড়েছিল। তাই সেই শকিং ফলাফল বাস্তবতার মুখে ওস্তাদ-সাগরেদেরা সবকিছু গুটিয়ে কলকাতায় ফিরে চলে গেছিল। অর্থাৎ ফরমাল কাজ দিতে না পা্রার ব্যর্থতা ভারতের অর্থনীতির বহুদিনের। কিন্তু তা থাকলেও ইনফরমাল কাজ যোগাড় করে আধপেটে খেয়ে হলেও নিজের সারভাইবাল মানুষ কষ্ট করে যোগাড় করে নিচ্ছিল। কিন্তু মোদীর   ডিমনিটাইজেশন খুবই অবিবেচক সিদ্ধান্ত বলে হাজির হয়েছিল। ডিমনিটাইজেশন গরীব জীবনকে আরও অনিশ্চয়তায় ঠেলে দিয়েছিল। মূল কারণ বাজারে লেনদেন করার মত মুদ্রার অভাব আর তা থেকে ছড়িয়ে পড়া অনাস্থা। সেখান থেকে শঙ্কা। সার কথায় মোদীর অর্থনীতিও মানুষকে ফরমাল চাকরি তো দিতেই পারে নাই, কিন্তু মোদী ডিমনিটাইজেশন করে মানুষের ইনফরমাল কাজ-চাকরিটাও খেয়ে ফেলেছিল।

ভারতের অর্থনীতির আরেক পুরানা মূল সমস্যা হল, এখানে ফরমাল সেক্টরে যে কাজ পেল পরের ছয় প্রজন্মের সন্তানেরও হয়ত আর ফরমাল চাকরি পাওয়ার নিশ্চয়তা নেই।  কথাটা অন্যভাবে বললে, কষ্ট করে কোন সরকারের একটা টার্ম অর্থনীতি ভালো চললেও পরেরবার এটা শেষ, ঢলে পড়বেই। মনমোহনের আমলে তাই হয়েছিল। তাই দ্বিতীয়বার কংগ্রেস-জোট (২০০৯) আবার জেতার পর মনমোহন সরকারের অর্থনীতির ঢুবে সব শেষ হয়ে গেছিল। আবার পরে ২০১৪ সালে মোদী প্রথমবারই ক্ষমতায় আসার দু’বছর পরে (২০১৬) খারাপ দিন চলে এসেছিল। আর এখন তো খারাপ দিন শুরু হয়ে গেল সম্ভবত।

এ দিকে, গতকালই মনমোহন সিং এক বিরাট বাণী দিয়েছেন মোদীকে। সেটা ঠিক বিরোধী রাজনীতিকের বক্তব্য নয়, যেন পেশাদার অর্থনীতিবিদ হিসেবে পরামর্শ, এমন মানে দেয়ার চেষ্টা করেছেন তিনি। প্রায় ৮০০ শব্দের এক পরামর্শ বক্তব্য। না অবশ্যই, সব সমস্যার ধনন্বরি সমাধান মনমোহন বা তার কংগ্রেস দলের কাছে এখন আছে অথবা তাদের আমলেও হাতে ছিল ব্যাপারটা তা একেবারেই নয়। বরং সেকালে মনমোহনের দ্বিতীয় টার্মের যে অর্থনৈতিক ধস নেমেছিল, দাঁড়িয়ে দেখা ছাড়া কোনো সমাধান সে সময় মনমোহনের হাতেও ছিল না। কেবল মোদী তখন উলটো মনমোহনের বদলে তিনিই পারবেন কারণ গুজরাট চালানোর অভিজ্ঞতা তার আছে এই ভুয়া আশ্বাস তৈরি করে তিনি পরে (২০১৪) ক্ষমতায় জিতে আসতে মনমোহনের সেই ব্যর্থতাকে পুঁজি করতে পেরেছিলেন কেবল।

গতকালের মনমোহনের সেই লিখিত বক্তৃতার সার কথাটার শিরোনাম হল ‘ভয়ের রাজত্ব’ [“climate of fear” ]। মনমোহন আসলে অভিযোগ তুলে বলছেন যে, মোদী এখন ভারতে এক ‘ভয়ের রাজত্ব’ সৃষ্টি করে রেখেছেন। অনুবাদ করা সেই দু’লাইন হল এ রকমঃ
“উল্লেখযোগ্য ভয় ও অবিশ্বাস আছে অর্থনীতিতে নানান অংশগ্রহণকারীদের মনে। রাষ্ট্রের থেকে তুলনামূলক স্বাধীন প্রতিষ্ঠানগুলো যেমন, গণমাধ্যম, বিচারব্যবস্থা, নিয়ন্ত্রণকারী কর্তৃপক্ষগুলো, তদন্ত-গোয়েন্দা দফতরগুলো ইত্যাদি – এদের উপর আমাদের জনআস্থার সব কিছু ক্ষয়ে গেছে। আমাদের সমাজের এক গভীর অনাস্থা, চারিদিকে ছড়িয়ে থাকা ভয় ও অসহায়ত্ববোধ – এসবের বিষাক্ত মিশ্রণে আমাদের অর্থনৈতিক তৎপরতার দমবন্ধ হয়ে আসছে, আর তা থেকেই অর্থনৈতিক উন্নতিও দমবন্ধ হয়ে আসছে” [“There is profound fear and distrust among our various economic participants. Public trust in independent institutions such as the media, judiciary, regulatory authorities, and investigative agencies has been severely eroded. This toxic combination of deep distrust, pervasive fear and a sense of hopelessness in our society is stifling economic activity and hence economic growth,” ] ।

অর্থাৎ মূলত এক পলিটিকো গভীর অভিযোগ তুলে মনমোহন মোদীকে ভাল বিধিঁয়েছেন।

কিন্তু এগুলো সম্ভবত ঘটনার আসল দিক নয়। কারণ, আগামী আরো চার বছর তাহলে মোদী-আরএসএস রাজ্য নির্বাচনগুলো করবে কিভাবে, কী হাতে নিয়ে? আরো বেশি করে হিন্দুত্ববাদ নিশ্চয়! – মানে এনআরসি, সিটিজেনশিপ, গরু বা লিঞ্চিং ইত্যাদির তাণ্ডব দিয়ে! তাই নয় কি?

 

লেখক : রাজনৈতিক বিশ্লেষক
goutamdas1958@hotmail.com

 

[এই লেখাটা গত  ৩০ নভেম্বর ২০১৯ দৈনিক নয়াদিগন্ত পত্রিকার ওয়েবে ও পরদিন প্রিন্টে মোদির অর্থনীতির ঘণ্টা বেজে গেল!এই শিরোনামে ছাপা হয়েছিল।  পরবর্তিতে সে লেখাটাই এখানে আরও নতুন তথ্যসহ বহু আপডেট করা হয়েছে। ফলে সেটা নতুন করে সংযোজিত ও এডিটেড এক সম্পুর্ণ নতুন ভার্সান হিসাবে এখানে আজ ছাপা হল। ]