ইজিপ্ট ১: মোরসির ক্ষমতা কতদূর প্রশ্ন কেন উঠছে?

ইজিপ্ট ১: মোরসির ক্ষমতা কতদূর প্রশ্ন কেন উঠছে?

গৌতম দাস || Wednesday 27 June 12 || বিষয় অনুসারে পড়ুন : ফিলিস্তিন ও মধ্যপ্রাচ্য

https://wp.me/p1sCvy-2tI

 

[এই লেখাটা প্রথম ছাপা হয়েছিল চিন্তা ওয়েব পত্রিকায় ২০১২ সালে। এখানে হুবহু সেটাই তুলে রাখা হয়েছে আর্কাইভ করে রাখার উদেশ্যে আগষ্ট ২০১৮ সালে। দুই পর্বে লেখাটার এটা প্রথম পর্ব।]

ইজিপ্টের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন মানে দ্বিতীয় দফার রান-অফ নির্বাচন শেষ হবার পর, আরও তাৎপর্যপূর্ণ এই যে নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণায় ২৫ জুন সন্ধ্যায় ব্রাদারহুডের প্রার্থী মোহম্মদ মোরসিকে নির্বাচিত ঘোষণা করা হয়েছে। তবু দেশি-বিদেশি মিডিয়ায় সব জায়গায় মূল আলোচনার বিষয় মোরসির ক্ষমতা কি কি, কত দিনের প্রেসিডেন্ট, কি তাঁর কাজ এবং কাজের সীমা ইত্যাদি। কোন রাষ্ট্রের প্রধান নির্বাহী (প্রধানমন্ত্রী বা প্রেসিডেন্ট) বলতে প্রচলিত যে ধারণা দুনিয়ায় আছে সেই রকম একটা ভাবের মধ্য দিয়ে এই নির্বাচন ঘটেছে। কিন্তু সুনির্দিষ্ট কোন রাষ্ট্রের বেলায় নির্বাহী প্রেসিডেন্ট বলতে দুনিয়াতে প্রচলিত ভাবটা কে কি বুঝে তা দিয়ে কোন কাজ চলতে পারে না, বরং ঐ সুনির্দিষ্ট রাষ্ট্রের বেলায় নির্বাহী প্রেসিডেন্ট-এর মানে কি, কি তাঁর ক্ষমতা, কোনটা তার নয়, কতদিনের জন্য ক্ষমতা ইত্যাদি স্পষ্ট করে বলা থাকতে হয়। তা বলা থাকতে হয় কনষ্টিটিউশনে এবং নির্বাচনের আয়োজন শুরুরও আগেই । একটা কনষ্টিটিউশন কোন রাষ্ট্রের থাকার মানে হল ঐ রাষ্ট্রের নাগরিক-জনগণ রাজনৈতিকভাবে সংগঠিত (কনষ্টিটিউটেড) হয়েছে; এভাবে হলে, হয়ে গিয়ে থাকলে সেটাকে রাষ্ট্র বলা চলে। অন্যভাবে বললে জনগণ রাজনৈতিকভাবে কনষ্টিটিউটেড হওয়া আর রাষ্ট্রের জন্ম হয়ে যাওয়া একই কথা। আর সেই সাথে জনগণ কিসের ভিত্তিতে একত্র হলো, কনষ্টিটিউটেড হলো সেই ভিত্তি – জনগণের ইচ্ছা আকাঙ্ক্ষার কোন ভিত্তি – সেকথার লিখিত দলিলটা হলো কনষ্টিটিউশন। ঐ কনষ্টিটিউশনে বলে দেয়া থাকে, রাষ্ট্র যে পরিচালনার করবে সেই নির্বাহী প্রধান রাষ্ট্রপতি বা প্রধানমন্ত্রী কাজ, ক্ষমতা কি, কতদিনের, রাষ্ট্র কিভাবে পরিচালনা হবে ইত্যাদি। এরপর সেই কনষ্টিটিউশনের অধীনস্ততা মেনে রাষ্ট্রের বাকি সমস্ত  প্রতিষ্ঠান এমনকি খোদ নির্বাহী প্রধান, পার্লামেন্ট অথবা বিচার বিভাগ সবাই আনুগত্য প্রকাশ করেই একমাত্র তারা যার যা ভুমিকা পালন করতে পারে। ফলে রাষ্ট্র দৃশ্যমান হয়। খেয়াল রাখতে হবে আমি রাষ্ট্রের কথা বলছি, দেশ না। দেশ বলতে ওর মাটি সীমানা মানুষ ইত্যাদি সবই থাকতে পারে – এতে দেশ হয়ে থাকলেও তা রাষ্ট্র নাও হতে পারে। সোমালিয়া একটা দেশ বটে কিন্তু রাষ্ট্র নয় সেটা। আবার কোন দেশ একই থাকে কিন্তু ওর রাষ্ট্র আবার কনষ্টিটিউট বা গঠন করে নেবার দরকার হতে পারে। দরকারের মূল কারণ, পুরানা রাষ্ট্র আর জনগণের আশা আকাঙ্ক্ষার প্রতিনিধিত্ব করে না তাই। রাজনৈতিক শব্দে একে কোন দেশের নতুন করে রিপাবলিক গড়া বলে। আবার অনেকের মনে হতে পারে এতক্ষণ রাষ্ট্র বা রিপাবলিক (গণ)রাষ্ট্র বলতে আমি বোধহয় আগাম ধরেই নিয়েছি যে আমি “গণতন্ত্র” ধরনের রাষ্ট্রের কথাই বলছি। না আমি তা বলছি না। আমি  রাষ্ট্রের কথা বলছি, রিপাবলিক রাষ্ট্রের কথা বলছি। এই রাষ্ট্র ইসলামি, কমিউনিষ্ট, লিবারেল ইত্যাদি অথবা এসবেরও বাইরে নতুন কোন রাষ্ট্র হতে পারে। আর এসব রাষ্ট্র শব্দের আগে বিশেষণে রিপাবলিক কথাটা যোগ করেছি এজন্য যে এটা অন্তত রাজা, বাদশা সম্রাটের রাষ্ট্র বা সাম্রাজ্য নয়; এসবের বিপরীতে জনগণের কর্তৃত্বের রাষ্ট্র কেবল সেটা পরিস্কার রাখার জন্য।

  • ইজিপ্টের ক্ষেত্রে  রাষ্ট্রের কোন কনষ্টিটিউশন বর্তমানে নাই।  মোবারকের পুরানা কনষ্টিটিউশন বাতিল বলে ঘোষণা করা হয়েছে গত পার্লামেন্ট নির্বাচনের পর, পার্লামেন্ট বসার আগে এবং SCAF (সুপ্রীম কাউন্সিল অফ আর্মড ফোর্স)-এর ঘোষণায় নিজস্ব নির্বাহী ক্ষমতার জোরে ।
  • এর মানে ইজিপ্ট একটা অন্তর্বতীকালিন বা মধ্যবর্তী অবস্থায় আছে, পুরানা রাষ্ট্র নাই আবার নতুন রাষ্ট্র কনষ্টিটিউট করা হয়নি – এদুইয়ের মাঝামাঝি অবস্থা।
  • তাহলে নতুন কোন কনষ্টিটিউশনের আগেই একটা প্রেসিডেন্ট নির্বাচন ইজিপ্টে ঘটেছে, ঘোড়ার আগে গাড়ীর মত। আবার এর আগে একটা পার্লামেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়ে গেছে গত এপ্রিলে; ব্রাদারহুড যেখানে সংখ্যাগরিষ্ট আসন পেয়েছে। সাথে ইসলামি সালাফি রাজনীতির নূর পার্টি (২৫%) মিলিয়ে মোট ৫৪% আসন এই দুই ইসলামী ব্যকগ্রাউন্ডের রাজনীতিক দলের হাতে। সাধারণভাবে পার্লামেন্ট নির্বাচন মানে আগাম একটা কনষ্টিটিউশন আছে; সে কনষ্টিটিউশনের অধীনে সীমায় থেকে প্রতিদিনের নানান প্রয়োজনীয় আইন প্রণয়ন ওর কাজ। কিন্তু ইজিপ্টের বিশেষ ক্ষেত্রে নামে বলা হচ্ছে এটা সুরা কাউন্সিল বা পার্লামেন্ট কিন্তু এর কাজ হবে একটা কনষ্টিটিউশন খাড়া করা। কিন্তু তাও আবার সরাসরি নয়। পার্লামেন্টের দ্বারা একশ মনোনিত (নির্বাচিত নয়) সদস্যের এক কমিটি ইজিপ্ট রাষ্ট্রের কনষ্টিটিউশন (খসড়া বা প্রস্তাবিত) খাড়া করবে। যেটা পরে হয়ত পার্লামেন্ট পাশ বা অনুমোদন করলেই হবে; অথবা আবার গণভোটে দেয়া হবে।(“হয়ত” বলে আমাকে বাক্য লিখতে হচ্ছে এজন্য যে এগুলোর কোনটাই পার্লামেন্ট নির্বাচনের আগে পরিস্কার করা হয় নাই।) কিন্তু তাই যদি হয় তবে পুরানা বা নতুন কোন কনষ্টিটিউশনই না থাকা অবস্থায় পার্লামেন্ট নির্বাচনের কাজ, উদ্দেশ্য লক্ষ্য কী? কেনই বা কথাটা সুরা কাউন্সিল বা পার্লামেন্ট বলা হচ্ছে; যেখানে হবার কথা একটা কনষ্টিটিউয়েন্ট এসেম্বী (কনষ্টিটিউশন প্রণয়নের উদ্দেশ্যে সভা) বা আমাদের বাংলায় সমতুল্য প্রতিশব্দ ‘গণ পরিষদ’; ফলে ঠিক পার্লামেন্ট মেম্বার বা নির্বাচন নয়, বরং গণ পরিষদের সদস্য কে হবেন তাঁর নির্বাচন – এটাই হবার কথা। এটা পার্লামেন্ট নির্বাচনেরও আগের কাজ। প্রথম কাজ কনষ্টিটিউশন বা রাষ্ট্র গঠন – জনগণের কনষ্টিটিউটেড হওয়া – সেটা ঘটানো। এরপর ঐ কনষ্টিটিউশনের অধীনে প্রেসিডেন্ট ও পার্লামেন্ট নির্বাচন। ফলে বড় ধরনের এক গোজামিল এখানে চলছে আমরা দেখতে পাচ্ছি। উপরে বারবার দেখিয়েছি কোন কিছুই স্পষ্ট না করে পার্লামেন্ট নির্বাচনের আওয়াজে ঘটনা চলছে। এমনকি ঐ একশজন কারা কিভাবে মনোনিত হবেন তাও স্পষ্ট করে রাখা হয় নাই। ফলাফলে আমরা দেখেছি, ঐ পার্লামেন্ট এনিয়ে বিরোধ মীমাংসা শেষ করতে না পেরে ঝুলন্ত অবস্থায় ফেলে রাখে। ব্রাদারহুড সালাফি বাদে সমাজের বাকি সবাই পার্লামেন্ট থুয়ে আবার তাহরির স্কয়ারমুখী জমায়েত হয়। এই অবস্থা অবশ্য পার্লামেন্ট নির্বাচনের আগেও হয়েছিল। নির্বাচন বর্জনের ডাক এসেছিল। কিন্তু এর ভিতরেই পার্লামেন্ট নির্বাচন ঘটেছিল। আর পরে দেখলাম পার্লামেন্টের বিরোধ মীমাংসা যখন হলো না তখন ইতোমধ্যে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের সময় এসে যাওয়ায় সবাই তাতেই মত্ত হয়ে গেল এই ভেবে যে কে প্রেসিডেন্ট হবে তা দিয়েই তারা সব বিরোধের মীমাংসা করে নিবেন।

গণ আন্দোলনে গণঅভ্যুত্থান ঘটাতে বা যেকোন বিপ্লব সফল করতে গেলে কনষ্টিটিউশন থাকা আর না থাকার মাঝের অন্তর্বতীকালিন বা ইনটেরিম ক্ষমতা কার হাতে থাকছে এটা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। বলা যায় সব কিছুর নির্ধারক এবং লক্ষণও বটে। র‍্যাডিকাল কোন পরিবর্তন বিপ্লবের ভাব তুলে এর বদলে তা উদারতাবাদী লোক দেখানো কোন ঘটনা হিসাবে গণ আন্দোলনে পরিণত হয়ে যাবে কি না তা সহজে বুঝবার উপায় হলো অন্তর্বতীকালিন বা ইনটেরিম ক্ষমতাটার দিকে লক্ষ্য রাখা। উপরে পার্লামেন্ট নির্বাচনের নামে তামাশা আর পরে একইভাবে নির্বাহী প্রেসিডেন্টের নির্বাচনের নামে যে রহস্য ইজিপ্টের আমরা দেখছি – মোরসি নির্বাচিত এটা জানার পরও সাথে সাথে যে প্রশ্ন উঠছে যে তাঁর ক্ষমতা কি কি, আর সমানে পিছন থেকে SCAF সমানে প্রম্পট করছে, এক এক সময় এক এক ভাবে ফরমান জারি করে প্রেসিডেন্টকেই সাইজ করছে – এই ঘটনাগুলো প্রমাণ করছে অন্তর্বতীকালিন বা ইনটেরিম ক্ষমতা কার এটা কত গুরুত্বপূর্ণ, সেন্ট্রাল পয়েন্ট। কিন্তু SCAF কিভাবে কেন অন্তর্বতীকালিন বা ইনটেরিম ক্ষমতা হয়ে গেল? এরমানে আরব জাগরণ আন্দোলন বা বিপ্লবের আওয়াজই কি  SCAF কে ক্ষমতায় আনে নাই? ঘটনা ১০০ ভাগ সত্যি। কিন্তু এই সত্যি ঘটনা ঘটতে পারল কেন? কেন এমন হলো, এদিকটা এখন বুঝাবুঝির দিকে যাব।

ইজিপ্টের ঘটনায় মূল তিন প্লেয়ার – ১) SCAF, ২) স্থানীয় ব্রাদারহুড আর ৩)পশ্চিমের লিবারেল ইসলাম (RAND প্রজেক্ট বা গ্লোবাল কারযাভি ধারা)। এর বাইরে সেকুলার, কমিউনিষ্ট বা লিবারেল ধারার ছোট টুকরা যারা আছে এরা ঠিক গোনায় ধরা প্লেয়ার হতে পারেনি তাই এদের নিয়ে বিশেষ আলোচনা না করে তাহরিরের মাঠের সাধারণ গণ আন্দোলনের কর্মীদের ভিতরে ধরেছি, সবমিলিয়ে যারা চতুর্থ ধারা বলতে পারি।

[এই লেখাটা শুরু করেছিলাম ১৬-১৭ জুনের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ঠিক আগে। লেখার প্রসঙ্গ ক্রমশ বিস্তার হতে থাকে কারণ, যেটাকে গ্লোবাল কারযাভি ইসলাম বলছি – এই গুরুত্বপুর্ণ ফ্যাক্টরটা কোথাও আলোচনা হতে দেখিনি। “আরব স্প্রিং” বা গ্লোবাল কারযাভি ইসলাম জিনিষটা কি কেন, এর প্রভাবে ইজিপ্টের রাজনৈতিক ঘটনাবলীর সম্পর্কটা কি এটা বাদ  রেখেই সব আলোচনা চলছে। মিডিয়াগুলোর ফোকাস হলো ব্রাদারহুড ইসলাম নিয়ে তেড়ে আসছে এবার কপটিক খ্রীশ্চানদের কি দশা ঘটে এটাই যেন মূল বিষয়। অথচ তুলনায় এটা সবচেয়ে তুচ্ছ দিক। ফলে কেন তুচ্ছ বলছি সেকথাগুলো ব্যাখ্যা করে বলতে গিয়ে লেখা শেষ করতে পারিনি। এদিকে পরিস্থিতি প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার দিকে গড়িয়ে যাচ্ছিল। এই দেখে ঐ ২৫ তারিখেই ঘন্টা দুইয়ের মধ্যে তাড়াহুড়া তবে আলাদা করে “কয়েক ঘন্টা পর ইজিপ্ট – কি ঘটতে পারে? কি হতে যাচ্ছে?” শিরোনামে লেখাটা দিয়ে দেই। এখন মুল লেখাটা আবার সাজিয়ে লেখার চেষ্টা করছি, কয়েক পর্বে। ]

 

বিপ্লবী রাজনীতি না উদারবাদী রাজনীতি

কোন গণঅভ্যুত্থান ঘটাতে, বিপ্লব সফল করতে গেলে পুলিশ-মিলিটারীর মার নির্যাতন সহ্য করা, অঙ্গ হারানো, নিহত বা গুম হয়ে যাওয়া ইত্যাদিতে দমনের সব পথ মোকাবিলায় পাড়ি দিয়েই একমাত্র সেটা ঘটতে পারে—এটা কমবেশি সবাই জানেন। কিন্তু কোন প্রতিরোধ আন্দোলন সেটা গণঅভ্যুত্থান, বিপ্লব হলো বা হবে কি না, পৌছাবে কি না তা – কতটা মাত্রার দমন নির্যাতন সহ্য করা হয়েছে তা মেপে ঠিক হয় না; বলা ভাল নির্যাতনের মাত্রা আর বিপ্লব – এদুটোর আসলে কোন সম্পর্কই নাই, সম্পর্ক আছে মনে করে কোন মনবুঝ দেয়াটাও বেকুবি, নিজেকে ধোকা দেয়া। বাংলাদেশেও তরুণ রাজনৈতিক কর্মীরা ১৯৯০ সালে নিজেদের সাথে এমন ধোকাবাজি করেছিল, দাবি করেছিল প্রেসক্লাবের রাস্তায় বসে বাদাম চিবাতে চিবাতে তারা নাকি এক গণঅভ্যুত্থান করে ফেলেছিল। ইজিপ্টের আরব জাগরণের বিপ্লবীরা একই সমস্যায় পড়েছে। গত আঠারো মাস ধরে আন্দোলনে তাদেরও ধারণা হয়েছিল তারা বিপ্লবের স্বাদ পেয়েছে, নিচ্ছে। আজ (১৬-১৭ জুন) প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের দ্বিতীয় রাউন্ড মানে রান-অফ চলছে। দুমাস আগের নির্বাচিত পার্লামেন্ট সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিল (সামরিক নেতৃত্ব নিয়ন্ত্রিত এক ধরণের কনষ্টিটিউশনাল কোর্ট) “অবৈধ” ঘোষণায় ভেঙ্গে দিয়েছে ঠিক এর দুদিন আগে ১৪ জুন। দিন দশেক আগে ঐ একই আদালত (প্রায় একই বিচারকেরা তবে কোর্টের নাম আলাদা) হোসেনী মুবারক, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী এবং ছয়জন সিনিয়র পুলিশ অফিসারের বিরুদ্ধে সাম্প্রতিক আন্দোলনে নিহত ৮০০ এর মত আন্দোলনকারীকে হত্যার অভিযোগ থেকে “প্রমাণাভাবে” তাদের খালাস বলে রায় দিয়েছে। অর্থাৎ এই ৮০০ জনকে কারা মেরেছে, কাদের হুকুমে পুলিশ গুলি ছুড়েছে তা আইনের চোখে আন-আইডেনটিফায়েড”, তাই বেকসুর খালাস। কিন্তু সাথে এক তামাশা আছে এখানে। ঐ ৮০০ জনকে হত্যা রাষ্ট্র কেন প্রটেক্ট করতে পারেনি এই অভিযোগে কেবল প্রেসিডেন্ট ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে জাবজ্জীবন সাজা দেয়া হয়েছে। এর আগে এতদিন ইজিপ্টের বিপ্লবী তরুণেরা খুশিতেই ছিল বিপ্লবের কিছু একটা হচ্ছে মনে করে। বিপ্লব প্রায় শেষ মনে করে, বিপ্লবের গাথা লিখাতেও তারা উদ্যোগী হয়ে গিয়েছিল। গান ছড়া, কার্টুন ডকুমেন্টারীতে সমাজ সয়লাব হচ্ছিল, যেমন হয়। কিন্তু এই রায়ের পরেই কেবল তারা প্রথম টের পাওয়া শুরু করে যে তারা প্রতারিত, ঠকেছে তারা। সবকিছু হাতছাড়া তাদের, আঙ্গুলের ফাঁক গলে সব বেরিয়ে গেছে। কবে কিভাবে বের হয়ে গেছে টেরও পায়নি। এতদিন খুশিতে আশা ভরশায় বুঁদ হয়ে মগ্ন থাকছিল আর ভেবে ছিল মোবারক আর তার সঙ্গী সাগরেদদের বিচার হচ্ছে, হবে। আসলে তরুণ আত্মত্যাগী রাজনৈতিক কর্মীরা নিজেদেরই ঠকিয়েছে; কারণ বিপ্লব কি, কি করে বুঝা যায় বিপ্লব হচ্ছে কি না, হবে কি না সে সম্পর্কে তাদের ভাবনা কত নাদান সে খবর রাখতে চায়নি। প্রতিরোধ আন্দোলন সময়ের নির্যাতন কম হয় নাই, ৮০০-৯০০ এর মত বিপ্লবী মারা গেছে এই ১৮ মাসে, ফলে অনুমান করে নেয়া যায় নিহতের সাথে আহত পঙ্গু হয়ে যাবার সংখ্যাটাও অনুপাতে কত হতে পারে এবং যারা নির্যাতনে ট্রমাটাইজ মানসিক বিকলাঙ্গ সদমা নিয়ে আছেন হয়েছেন এই সংখ্যাটাও। ফলে পুরা সমাজে উথাল পাথাল করা ১৮ মাসের এই আন্দোলন সংগ্রাম মানে সামাজিকভাবে গণ-মনকে ঝাকুনি দেয়ার ঘটনা এটা। এতেও ঝাকুনি খায়নি বাইরে রয়ে গেছে  এমন লোকজন সমাজে খুব কমই অবশিষ্ট আছে। অর্থাৎ বলতে চাচ্ছি নির্যাতন হত-নিহত হওয়া আর সবার উপরে সামাজিক ঝড়ের প্রভাব আন্দোলিত হয়ে যাওয়া এর সব শর্তই এখানে পূর্ণ হয়েছে। কিন্তু দুঃখের কথা এত কিছুর পরও সবাই টের পাচ্ছে এটা বিপ্লব হয় নাই; বিপ্লবের দেখা নাই। আর তরুণেরা সেটা টের পাচ্ছে এখন। এখানে তরুণ বলতে সবাই, এককথায় সামরিক কাউন্সিল SCAF বাদে রাজনৈতিক কমিউনিটি, সমাজের সব অংশে সব দল মতের সব জনগণের আকাঙ্ক্ষার প্রতীক বুঝিয়েছি। বিপ্লব যে ঘটেনি এটা আমি এখানে বলছি বলে না, ইজিপ্টের সবার মুখে আর মনের অনুভবের কথা, কারও বুঝতে বাকি নাই। সারা রাজনৈতিক কমিউনিটি হতাশ শুধু নয়,  নতুন করে সমাগত নির্যাতন নিপীড়নের দিন আবার ফিরে আসছে এটা ভেবে সবাই আতঙ্কিত হয়ে যাচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে যেটা সবার আগে ঘটে রাজনৈতিক পাড়ায় পরস্পরকে ব্যর্থতায় দোষারোপ করা, বিভক্তি বড় হওয়া, যা আগেও ছিল এখন তা আরও বড় হতেও শুরু করেছে।

তাহলে মূল কথাটা, ব্যাপারটা কি এই যে, বুঝব কি করে ঘটনা বিপ্লবের দিকে হাটছে নাকি উদারবাদী রাজনীতির দিকে যাচ্ছে—এটা কেবল ঘটনা ঘটার শেষে  কি দাড়ালো সেটা দেখার পরে জানতে পারা ছাড়া আগাম বুঝবার কোন উপায়  নাই যে বিপ্লব হচ্ছে কি না? বিপ্লব কী আগে বুঝার কোন উপায় আছে?

অবশ্যই আছে। কিন্তু কি সেটা? লেনিন সাহেব বলেছিলেন, বিপ্লব করা নাকি একটা আর্ট। এবং অভুত্থান নাকি উপযুক্ত দিন তারিখের আগেও করা যায় না পরেও না। আরও এগিয়ে বলা কথাও আছে। পুরান রাষ্ট্র বা রাষ্ট্রব্যবস্থা যদি ভেঙ্গে না পরে তাহলে বুঝতে হবে বিপ্লব হয় নাই ইত্যাদি ইত্যাদি আনুষাঙ্গিক অনেক কথাবার্তা। তবু আমি সেদিকে যাব না, কোন চর্বিত চর্বন বা আপ্তকথা আউড়াব না, সেসব আশ্রয় করে আমার কথা সাজাব না। কিছু খাস কথা খাসভাবে বলার চেষ্টা করব।

 

Advertisements

ইজিপ্ট ২: ইসলামি রাজনীতিতে রাষ্ট্র ও ক্ষমতা ভাবনার সঙ্কট

ইজিপ্ট ২: ইসলামি রাজনীতিতে রাষ্ট্র ও ক্ষমতা ভাবনার সঙ্কট

গৌতম দাস || Sunday 01 July 12 || বিষয় অনুসারে পড়ুন : ফিলিস্তিন ও মধ্যপ্রাচ্য

https://wp.me/p1sCvy-2tF

 

[এই লেখাটা প্রথম ছাপা হয়েছিল চিন্তা ওয়েব পত্রিকায় ২০১২ সালে। এখানে হুবহু সেটাই তুলে রাখা হয়েছে আর্কাইভ করে রাখার উদেশ্যে আগষ্ট ২০১৮ সালে। দুই পর্বে লেখাটার এটা দ্বিতীয় পর্ব।]

 

আগের পর্বে বলেছিলাম, গণ-আন্দোলনের চাপে মোবারকের সরে যাওয়ার পর ট্রানজিশনাল বা অন্তর্বতীকালিন সরকার কে হচ্ছে এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। অন্তর্বতীকালিন সরকার হিসাবে যা তৈরি হবে তা গঠন করার সময় ও পরে এর উপর রাস্তার আন্দোলনের যদি একক কোন নিয়ন্ত্রণ কর্তৃত্বই না থাকে তবে বুঝতে হবে গণ-আন্দোলন একটা গর্ভস্রাবে পরিণত হতে যাচ্ছে। অন্তর্বতীকালিন সরকারে কে থাকবে, কারা সদস্য হবে তা নিয়ে গণ-আন্দোলনের কাউকেই প্রকাশ্যে বা ড্রয়িং রুমে ডেকেও মতামত চাওয়া হয় নাই। অন্তর্বতীকালিন সরকার কিভাবে হচ্ছে সেই পুরা ব্যাপারটাই ঘটেছে, বলা ভাল ঘটতে সক্ষম হয়েছে মোবারক ও সামরিক কাউন্সিলের কর্তৃত্বে, নিয়ন্ত্রণে। মাঠের আন্দোলনের নেতাদেরকে গোনায়ও ধরা হয় নাই। আর একভাবে বলা যায় তাদেরকে গণায় ধরতে বাধ্য করা যায় মাঠের আন্দোলন নিজেকে সে তীব্রতায় এবং উচ্চতায় নিতে ব্যর্থ হয়েছিল। ফলে সামরিক কাউন্সিলের পক্ষে কেবল মোবারককে সরিয়ে দিয়ে পুরা ক্ষমতা ও ক্ষমতার প্রতিষ্ঠানগুলো (সামরিক কাউন্সিল SCAF আর এর দুই সহযোগী—আদালত কেন্দ্রিক সুপ্রীম জুডিশিয়াল কাউন্সিল আর এরই বর্ধিত রূপ সুপ্রীম ইলেকশান কাউন্সিল) ঠিক যেমন ছিল সেভাবে অটুট রেখে নতুন করে পুরানা ক্ষমতাটাই আবার সাজিয়ে নেয়া সম্ভব হয়েছিল। পুরান ক্ষমতা অথবা এর নব উত্থানকে দমন করে এর উপর গণ-আন্দোলন নিজের কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠা করে নিবে এমন কোন কাজ, ইচ্ছা, আলামত কিছুই ঘটতে দেখা যায় নাই। কেবল মোবারকের সরে যাওয়া—এই দাবি আদায়ের খুশিতে জনগণকে মাতোয়ারা রাখার কাজেই গণ-আন্দোলনের শক্তিকে সীমিত রাখা হয়েছিল। গণ-আন্দোলন কেবল একটাই প্রতীকী কাজ করেছিল—মোবারকের রাজনৈতিক দল ন্যাশনাল ডেমোক্রাটিক পার্টির সদর দপ্তর জ্বালিয়ে দেয়া। জনগণের এই ক্ষোভের প্রতিকী অর্থ হলো, কেবল একটা শত্রুকে চিনানো তা হলো, মোবারকের ছেলে গামালকে কেন্দ্র করে মোবারকের বউয়ের যে খায়েস, যে ছোট ছেলেকে প্রেসিডেন্ট বানাবে, সেই ইচ্ছার সম্ভাবনা চিরতরে নাকচ করে দেয়া হয়েছিল। কিন্তু মনে রাখতে হবে এই ইচ্ছা কেবল গণ-আন্দোলনের নয় এটা সামরিক কাউন্সিল SCAF-এরও ইচ্ছা ও স্বার্থ ছিল। ফলে সহজেই ঘটানো গিয়েছিল। ফলাফলে পুলিশ বাহিনী প্রত্যাহার করে ট্যাঙ্কে চড়ে সামরিক বাহিনী শহরের দখল নিয়েছিল। আর রাস্তার জনগণ তাদের স্বাগত জানিয়েছিল। এর অর্থ হলো গণ-আন্দোলনের কাঁধে সওয়ার হয়ে সামরিক কাউন্সিল SCAF নিজের খায়েস পূরণ করে নেয়া । এই অর্থে তথাকথিত বিপ্লবে সামরিক কাউন্সিল SCAF-এরও ভাগীদারী প্রতিষ্ঠা হয়েছিল।

কেন এই পরিস্থিতি তৈরি হতে পেরেছিল

ক্ষমতা হস্তান্তরের আইনী বা লিগ্যাল দিক বিবেচনা করলে, মোবারকের কনষ্টিটিউশন অনুযায়ী প্রেসিডেন্টের অপারগতায় প্রেসিডেন্টের ক্ষমতা হস্তান্তর হওয়ার কথা ভাইস-প্রেসিডেন্টের হাতে, তিনিই একটিং প্রেসিডেন্ট হবেন এবং মোবারকের মতই তার সব ক্ষমতা ব্যবহার করবেন। কিন্তু মোবারক কোনভাবেই কোন সামরিক কাউন্সিলের কাছে ক্ষমতা দিয়ে যেতে পারেন না। কনষ্টিটিশন তাকে সে ক্ষমতা ও এক্তিয়ার দেয় নাই। এটা হলো পুরানা কনষ্টিটিউশনের দিক থেকে ক্ষমতাকে বুঝা ও বিচারের মানদণ্ড, বলবৎ আইনী সীমার মধ্যে থাকছে কিনা তা বুঝার কষ্টিপাথর। কিন্তু কোন গণ-আন্দোলনের বিপ্লব হিসাবে নতুন স্তরে (গণ-আন্দোলন উদারবাদী সীমায় থাকবে না বিপ্লবী র্যা ডিক্যাল হবে তাঁর প্রথম পরীক্ষা এটা ) আবির্ভাবের ন্যূনতম শর্ত হলো, নিজেই নিজেকে নতুন ক্ষমতা হিসাবে হাজির করা, কোন পুরান কনষ্টিটিউশন থেকে তাঁর ক্ষমতা উৎসারিত হচ্ছে এমন কোন ধারণা তৈরি হতে দেয়া বা ভুলে তা মেনে নেওয়া মানেই গণ-আন্দোলনের বিপ্লবী সম্ভাবনার ইতি টেনে দেয়া। ক্ষমতা থেকে বা আয়ত্বে থাকলে কনষ্টিটিশনের জন্ম দেয়া যায় কিন্তু কোন তৈরি কনষ্টিটিশন থেকে ক্ষমতা ডিরাইভ করা যায় না, উৎস মনে করে ভুল করা যায় না, পাওয়া যায় না। ক্ষমতা বিষয়ক এই মৌলিক ধারণা হাতের কড়ায় গুনে সবসময় নিজের কাছে পরিস্কার রাখতে হয়। কিন্তু আমরা দেখেছি, মোবারক জেনারেল সোলায়মানকে ভাইস প্রেসিডেন্ট বলে ঘোষণা দিলেন বটে কিন্তু সুপ্রীম কাউন্সিল অফ আর্মড ফোর্স বা SCAF বলে কিছু একটা খাড়া হয়ে নির্বাহী প্রেসিডেন্টের সব ক্ষমতা নিয়ে জেঁকে বসে গেল। গণ-আন্দোলন নিজেই নিজেকে ট্রানজিশনাল ক্ষমতা বলে দাবি করার বদলে হয়ে গেল SCAF-এর ট্রানজিশনাল ক্ষমতা নিয়ে নেয়া; আবার এটা অবশ্যই এক নতুন ক্ষমতা কারণ কার্যত সে আর পুরানা কনষ্টিটিউশন মেনে নিজেকে তৈরি করে নাই, নিজেই নিজেকে ক্ষমতা বলে দাবি করেছে। এটাই হলো তামাশার দিক। গণ-আন্দোলনের সম্ভাব্য ক্ষমতাটা ছিনতাই হয়ে যাওয়া। SCAF যে ট্রানজিশনাল ক্ষমতাটা দখলে নিল এটা তাঁর নিজের তৈরি না, ছিনতাই করে নেয়া ক্ষমতা, এটা SCAF-এর অজানা নয়। এর প্রমাণ হলো, টিভিতে ক্যামেরার সামনে মানে দেশবাসীর সামনে জেনারেল সোলায়মান একেবারে সামরিক কায়দায় তাহরির স্কয়ারকে বিশাল এক স্যালুট ঠুকে বিপ্লব বিপ্লব বলে চিৎকার শুরু করে দিতে দেখলাম আমরা। কারণ তারা বুঝে তাহরির স্কয়ারের কারণেই SCAF নামে তারা ক্ষমতায়। তারাই তাহরির স্কয়ারের (চোরাই করে আনা) ক্ষমতা। এটা SCAF-এর পক্ষে ক্ষমতা ছিনতাই করে আনার এক বিপ্লবই বটে। SCAF-এর ক্ষমতার ভিত্তি কোন পুরানা কনষ্টিটিউশন না, চুরি করে আনা ক্ষমতাটাই তাঁর ভিত্তি। আর নতুন ক্ষমতা তো কনষ্টিটিউশন থেকে আসে না, আসার কথাও না।

আমার এই লেখা পড়ে যারা ব্রাদারহুডের রাজনীতি ভালবাসেন তারা ফ্যাকচুয়াল যুক্তি তুলতে পারেন যে ব্রাদারহুড তো আন্দোলনের শুরু থেকে শামিল ছিল না। তারা বড়জোর বাইরে থেকে ধাত্রির ভূমিকায় ছিল যেন গন-আন্দোলনটা (বিপ্লব?) প্রসব করে, তারা আন্দোলনের আহতদের মেডিক্যাল সেবা বা খাবারদাবার সরবরাহের ভূমিকা নিয়েছিল, মোবারকের এনডিপি সদর দপ্তরে আগুন দিয়ে এটাকে গণক্ষোভের প্রতীকে প্রতিষ্ঠার কাজটা করেছিল, ঘোড়া উটে বা উটের গাড়ি চড়ে এনডিপি-সামরিক মদদে গুন্ডারা তাহরির স্কয়ারের জমায়েতের উপর দিয়ে বিপ্লব মাড়িয়ে দাবড়ানোর যে গুন্ডামী করতে এসেছিল তা প্রতিরোধের সময় ব্রাদারহুড নির্ধারক ভূমিকায় প্রতিরোধের দেয়াল তৈরি করেছিল। এছাড়া আর একটা যুক্তি তাদের হতে পারে, যে মোবারকের পতনের পর নির্বাচন দেবার ব্যাপারে ব্রাদারহুডের বাইরে আন্দোলনে যে সব রাজনৈতিক ধারা আছে [সেকুলার কমিউনিষ্ট ও আমেরিকার ফ্রিডম হাউস জাতীয় এনজিও এর উৎসাহ প্রভাবের লিবার্টির শ্লোগান দেয়া তরুণেরা, যেমন সিক্সথ এপ্রিল গ্রুপ ইত্যাদি; এছাড়া সাধারণ জনগণ] তাদের চাপেই SCAF ট্রানজিশনাল ক্ষমতা তৈরি করে জেঁকে বসার পরপরই নির্বাচন দাবি করা যায় নাই। তাদের ধারণা ছিল যত দ্রুত নির্বাচন হবে ততই ব্রাদারহুডের (আগে থেকেই সংগঠিত সংগঠন হয়ে থেকেছে বলে) জিতে আসার সম্ভবনা।

এই যুক্তির অসার দিকটা হলো, এটা ট্রানজিশনাল ক্ষমতাটা কে কিভাবে তৈরি করছে এই গুরুত্বপূর্ণ দিকটা নজর করতে অক্ষম, এটা কোন বিষয়ই না এদের কাছে; বিষয় হলো মোবারকের সরে যাওয়া মানে একটা নির্বাচন আর নির্বাচন হলেই সেটা মোবারক বা SCAF-এর বিরুদ্ধে ও বাইরে একটা ক্ষমতা তৈরি করবে। এটাই ব্রাদারহুড এর দৃষ্টিতে ক্ষমতা পাবার ধারণা, ক্ষমতা ধারণা। ফলে ট্রানজিশনাল সময়ে ক্ষমতাটা কে নিচ্ছে কার হাতে যাচ্ছে তাতে কিছুই যায় আসে না। ক্ষমতা ধারণার কোন ন্যূনতম বুঝ না থাকার জন্য নির্বাচনে দেরি করিয়ে দেওয়াটাকে ক্ষমতা না পাওয়া, ক্ষমতা পেতে দেরি হওয়ার কারণ বলে মনে করছে।

উপরে আমি বারবার জোর দিয়েছি কেন ট্রানজিশনাল ক্ষমতা বিষয়টা গুরুত্বপূর্ণ, তার উপর। কারণ এই নতুন ক্ষমতাটাই ঘটনা পরবর্তী সমস্ত ঘটনার গতি, অভিমুখ ঠিক করে দিবে। এটা স্রেফ এক নতুন ক্ষমতা নয়, এটা আসলে সব ঘটনা নিয়ন্ত্রণের ক্ষমতা। ইজিপ্টে আজ পর্যন্ত এটা তাই ঘটিয়েছে। SCAF-এর ট্রানজিশনাল ক্ষমতা অর্থাৎ ক্ষমতাসীন হওয়াটাই আজ পর্যন্ত সব ঘটনা আর ক্ষমতার নিয়ন্ত্রক। এমনকি নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট কেউ হয়ে আসলেও সে ক্ষমতা নাও পেতে পারে, নির্বাচিত পার্লামেন্ট হলেও সে পার্লামেন্ট এক ঘোষণা দিয়ে তুড়ি মেরে অবৈধ বাতিল বলে দিতে পারে, প্রেসিডেন্টের ক্ষমতা কি হবে তা সে ঠিক করে দিতে পারে, প্রেসিডেন্ট নিজে সরকার গঠন—মন্ত্রীসভা গঠন করার আগেই SCAF নিজেকে নিজেই প্রতিরক্ষামন্ত্রী বলে ঘোষণা দিতে পারে ইত্যাদি। এককথায় প্রেসিডেন্ট বা পার্লামেন্ট নির্বাচনে ক্ষমতার যে প্রাতিষ্ঠানিকতা তৈরি হবে সেটা SCAF ক্ষমতার অধীনস্ততা মেনেই ডিকটেশনে কেবল একটা সীমিত ক্ষমতা চর্চা করতে পারবে।

কথাগুলো সোজা-সিদা করে বললে, ক্ষমতা কি জিনিষ, এর কোন ধারণার বালাই এদের নাই। ট্রানজিশনাল ক্ষমতা বিষয়টাকেই বুঝতে পারেনি। আর তৃতীয়ত, ধরে নিয়েছে নির্বাচনের মাধম্যে ক্ষমতা পাওয়া যায়।

নির্বাচন ক্ষমতা তৈরি করে না। বরং নির্বাচনেরও আগে নির্বাচন আহবান করার মুরোদ—এটাই ক্ষমতা; [আলোচ্য ক্ষেত্রে SCAF যেটা আগেই হাসিল করে নিয়েছে।] গণ-অভ্যুত্থান বিপ্লবী এই ক্ষমতার উৎস, সেটাই ট্রানজিশনাল বা সাময়িক ক্ষমতা। সাময়িক কেন? এরপর নির্বাচন ইত্যাদিতে যেটা তৈরি হয় সেটা হলো এই ক্ষমতা কি করে বাস্তবে পরবর্তীকালে ব্যবহার করা হবে, বাইরের কেউ নয় বিপ্লবের ভিতরকার কেউঁ প্রতিনিধি হয়ে কেবল ঐ ক্ষমতা সবার পক্ষ থেকে প্রয়োগ করবে এরই নিয়ম, আইন কানুন ইত্যাদির জন্য প্রতিনিধি কে হবে তারই নির্বাচন। নির্বাচন নিজে ক্ষমতার উৎস নয়, ক্ষমতা সে জন্ম দিতে পারে না। ক্ষমতা থাকলে, অর্জিত হলে, নিয়ন্ত্রণে আসলে তবে নির্বাচন আয়োজন বা আহবান করা যায়। অর্জিত ক্ষমতা কি করে ব্যবহার প্রয়োগ করা হবে এরই নির্বাচন। ক্ষমতা এক্সারসাইজের পথে [প্রতিনিধি] নির্বাচন এক উপায় মাত্র, নির্বাচন নিজে ক্ষমতা নয়।

এই লেখা শুরু করেছিলাম এই প্রশ্ন রেখে যে কি করে বুঝা যাবে ঘটমান বিপ্লবের অভিমুখ ঠিক আছে কিনা? গণ-আন্দোলন যদি নিজেই ঐ দেশ বা রাষ্ট্রের প্রচলিত সব ক্ষমতাকে চ্যালেঞ্জ করে নিজেকে একমাত্র প্রাধান্য বিস্তারি ক্ষমতা হিসাবে প্রতিষ্ঠা করতে পারে, পুরানা সব ক্ষমতা প্রতিষ্ঠানকে সবাইকে অধীনস্ত হতে বাধ্য করতে পারে তবে বুঝতে হবে অন্তত অভিমুখ ঠিক আছে। কিন্তু আর এক গুরুত্বপূর্ণ ধাপ আছে, কাঠামোর দিক থেকে পুরানা ক্ষমতা প্রাতিষ্ঠানিকভাবে যে কারণে দাড়িয়েছিল, ফাংশনাল থাকতে পেরেছিল [ সামরিক, আদালত, সংসদ ইত্যাদি প্রতিষ্ঠানে] সেগুলো ভেঙ্গে দিতে হবে। এই ভেঙ্গে দেয়া মানে ব্যক্তিগতভাবে তাদের হত্যা করা একেবারেই নয়। প্রথম কথা, আগের মত করে নির্বাহী রাষ্ট্রপ্রধানের অধীনে আর ফাংশনাল থাকা নয়, তাঁরা তখন থেকে নতুন মাঠের ক্ষমতা [তাহরির স্কয়ার] কাছে আনুগত্য প্রকাশ করবে এবং সীমিতভাবে সাময়িক কাজ চালিয়ে যাবার মত ফাংশনাল থাকবে কিন্তু মাঠের নতুন ক্ষমতার ইচ্ছা সাপেক্ষে। আর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ, পুরান ক্ষমতার কেন্দ্রীয় প্রতিষ্ঠান পুরানা কনষ্টিটিউশন ভেঙ্গে দিয়ে বাতিল ঘোষণা করে দিতে হবে। এতে মাঠের নতুন ক্ষমতা যেটাকে বলছি এটাই ট্রানজিশনাল ক্ষমতা। ট্রানজিশনাল ক্ষমতা নিজে ঘোষণায় কনষ্টিটিউশন সহ পুরানা সব ক্ষমতা ও প্রতিষ্ঠাঙ্গুলোকে নিজের আনুগত্যে নিতে পারতে হবে। তবেই জেনারেল সোলায়মান বা SCAF এর স্যলুট ঠুকে দেওয়াটা মিনিংফুল হবে। কিন্তু ইজিপ্টের ক্ষেত্রে এটা হয়েছে মাঠের ক্ষমতা হাইজাক করে SCAF নামে নিজেই নিজে ট্রানজিশনাল ক্ষমতা কায়েম করে ফেলেছে। ফলে স্যালুট নিজেই নিজেকে করেছে, ওর সাথে জনগণের কোন সম্পর্কই আর নাই।

মোরসির প্রেসিডেন্ট হিসাবে শপথ নেবার সময়ে প্রধান বিচারপতি শপথ পড়ানোর আগের উদ্বোধনী বক্তৃতায় একটা মন্তব্য করেছেন। বলেছেন, “এই অনুষ্ঠিতব্য শপথের পর থেকে ইজিপ্ট এক দ্বিতীয় রিপাবলিক হিসাবে জন্ম নিতে যাচ্ছে”। রাষ্ট্রতত্ত্বের দিক থেকে এটা একটা খুবই সঠিক উচ্চারণ। তিনি আসলে বলতে চেয়েছেন একই ইজিপ্ট দেশ, নতুন করে এক রাষ্ট্রে [আগের একই দেশ কিন্তু একই রাষ্ট্র নয়] নিজেকে কনষ্টিটিউট করতে যাচ্ছে। রাষ্ট্রের রি-কনষ্টিটিউশন মানে জনগণের নিজের নতুন শপথ নতুন করে রি-কনষ্টিটিউশন পুনর্গঠন এবং নাগরিক-জনগণের এই পুনর্গঠিত হওয়া মানে রাষ্ট্রে পুনর্গঠিত হওয়া – একই কথা। এই হলো মোরসির শপথ কথার তাৎপর্য। কিন্তু এত তাত্ত্বিক তাৎপর্য থাকা এবং এর প্রকাশ্য উচ্চারণ সত্ত্বেও এটা একটা তামাশার বেশি কিছু নয়। কারণ, ঐ তথাকথিত কনষ্টিটিউশনাল কোর্ট যারা শপথ পড়াতে এসেছেন তারা কারা? মোরসি যদি নতুন রিপাবলিকের ক্ষমতা হয়ে থাকেন, নির্বাচিত নির্বাহী প্রেসিডেন্ট হয়ে থাকেন, তাহরিরের মাঠের ক্ষমতার প্রতিনিধি হয়ে থাকেন তবে ঐ তথাকথিত কনষ্টিটিউশনাল কোর্টের আনুগত্য সেই মাঠের ক্ষমতা, জনগণের ক্ষমতার কাছে নেই কেন? কেন তাঁর আনুগত্যের উৎস SCAF? SCAF-এর ক্ষমতায় বলীয়ান হয়ে তিনি তথাকথিত কনষ্টিটিউশনাল কোর্টে হয়ে হাজির আছেন, শপথ পড়াতে এসেছেন। তাদের তাহরির মাঠের ক্ষমতার প্রতি কোন আনুগত্য নাই। ফলে তাত্ত্বিক তাৎপর্যপূর্ণ কথা উচ্চারণের আগে ঐ তথাকথিত কনষ্টিটিউশনাল কোর্ট প্রধান বিচারকের নিজের আনুগত্য কোথায় সেই প্রশ্ন নিজেকে নিজে করতে হত। SCAF-এর আনুগত্য মেনে কোন বিচারক সেকেন্ড রিপাবলিক বলে তাত্ত্বিক তাৎপর্যপূর্ণ কথায় নিজের জনগণের সাথে ঐতিহাসিক গাদ্দারি ঢাকা দিতে পারবেন না। তাই এই তামাশার নাটক আমরা ওখানে মঞ্চস্থ হতে দেখেছি। এই পর্যায়ে এসে মোরসি বেচারা আসলে, ঘ্যাতঘোত করতে পারেন কিন্তু এর বাইরে কিছুই করার আর অবশিষ্ট তিনি নিজেই রাখেননি। কারণ তিনি আগেই জনগণের ক্ষমতা, ট্রানজিশনাল ক্ষমতাটা SCAF-এর হাতে তুলে দিয়েছেন, মেনে নিয়েছেন। তিনি একমাত্র SCAF অনুগ্রহেই প্রেসিডেন্ট হতে পারেন, এটা বহু আগেই মেনে নেয়া হয়ে আছে।

সে কথা থেকে শুরু করেছিলাম, ব্রাদারহুডের যুক্তি যে SCAF-এর ট্রানজিশনাল ক্ষমতা কায়েমের পর বাম সেকুলারদের কারণে নির্বাচনটা তাড়াতাড়ি হতে পারে নাই, ফলে আজ মোরসির এই দুর্গতির কারণ সেটা। উপরের আলোচনায় আমরা দেখলাম সমস্যাটা নির্বাচন কত আগে ডাকা হবে তাতে কিছুই আসে যায় না, এমনকি SCAF-এর ট্রানজিশনাল ক্ষমতা কায়েমের পরেরদিন কোন নির্বাচন হলেও ওর পরিণতি আজকের মতই হত, বাস্তবতা থেকে আমাদের কারোই পালানোর কোন পথ নাই। মূল ট্রানজিশনাল ক্ষমতাটা SCAFকে দিয়ে দেয়া বা মেনে নেবার পর পরবর্তী সব অভিমুখ গতিপথ নির্ধারিত হয়ে গেছে ওখানেই। সারকথায় নির্বাচন কবে এটা বিষয়ই নয়, বিষয় হলো ক্ষমতা, ক্ষমতা কি তা আঙুলে গুণে বুঝা, মনে রাখা—এই কাজে অযোগ্যতা ব্যর্থতা। যেটা ব্রাদারহুড শুধু নয় ওর বাইরের সব রাজনৈতিক শক্তিরও অযোগ্যতা, ব্যর্থতা।

আমি বহু লেখায় এই দিকটা নিয়ে কথা তুলেছি যে ইসলামি রাজনীতি যেটা জাগছে এদের রাষ্ট্র ধারণা ও ক্ষমতা ধারণা নিয়ে চিন্তা ভাবনা হোম-ওয়ার্ক একেবারেই অপরিণত। সবটাই ষ্টেজে দেখা যাবে, উপস্থিত সময় কিছু একটা করে ফেলা যাবে ধরনের। আবার অনেকের ধারণা রাষ্ট্র ক্ষমতা ধারণাগুলো তো পশ্চিমের ঘরে জন্ম নিয়েছে, চর্চায় বড় হয়েছে। ইসলামি রাজনীতিতে এগুলো গুরুত্বপূর্ণ নয়। সাধারণভাবে ইসলামি রাজনীতি বড় জোর একটা খেলাফত রাষ্ট্র করব [যেটা আসলে বৃটিশ সাম্রাজ্য-রাষ্ট্রের মত কলোনী মাষ্টারীর সাথে বেশি খাপ খায় ধরনের অটোমান সাম্রাজ্য-রাষ্ট্রের এক ভাসাভাসা ধারণার বাইরে গিয়ে কিছু বুঝায় কিনা সেটা স্পষ্ট করতে পারে না] ধরনের এক স্বপ্ন কাজ করে। এমনকি ঐ যুগে সাম্রাজ্য-রাষ্ট্র জন্ম ও টিকিয়ে রাখার পূর্বশর্ত ছিল অন্য অনেক দেশকে ঐ সাম্রাজ্যের অধীনে কলোনী হয়ে থাকতে হবে। অর্থাৎ সাম্রাজ্য-রাষ্ট্র নিজেই নিজ ক্ষমতায়, নিজ জনগণের এবং নিজ রাষ্ট্র সীমানার কোন রাষ্ট্র না। অন্য দেশ দখল ও তাদেরকে কলোনী বানিয়ে রাখা সাপেক্ষে একটা সাম্রাজ্য-রাষ্ট্র এ যুগে আবার বাস্তবে কায়েম সম্ভব। তাঁর মানে কি ইসলামের নামে মুসলমান জনগোষ্ঠির দেশগুলো ইসলামি রাজনীতিতে কোন একটা রাষ্ট্রের সবাই কলোনী হয়ে যাবে? খুব জোরালো না হলেও এক খলিফার নেতৃত্বে [ইসলামি রাজনীতিতে এটাকে গাইডেন্স বলা হয়] খেলাফত কায়েমের ভাসাভাসা স্বপ্নটা এরকম বলেই আমার ধারণা হয়েছে। এসব দেখে পঞ্চাশের দশকে কমিউনিজমের শ্লোগানের আড়ালে দলে দলে সদ্য কলোনীমুক্ত দেশগুলোর সোভিয়েত ব্লকের সদস্য হয়ে যাওয়া আমরা দেখেছি সেই মিলের দিকটা মনে পড়ে যায়। আজ ইসলামি রাজনীতিতে যে সঙ্কট, রাষ্ট্র কি সে ধারণা বুঝবার চিন্তায় সঙ্কট সেই একই ঘাটতি কাজ করেছিল সদ্য কলোনীমুক্ত কমিউনিষ্ট প্রীতির ন্যাশনালিষ্ট রাজনীতির দেশগুলোতে। রাষ্ট্র কি সে ধারণা বুঝবার চিন্তার হোম-ওয়ার্ক কেউ করতে চায়নি। প্রায় সবাই যেটা মনে করেছিল, রাষ্ট্রভাবনা? সেটা আবার কি? এসব বুর্জোয়াদের গরীবদের দমিয়ে রাখার চাতুরি ব্যাপার স্যাপার। [তুলনায় ইসলামি রাজনীতিতে একই কথা তবে ভিন্ন ভাষায়, “রাষ্ট্র বা ক্ষমতা ধারণাগুলো তো পশ্চিমের ঘরে জন্ম নিয়েছে, চর্চায় বড় হয়েছে; ইসলামি রাজনীতিতে এগুলো গুরুত্বপূর্ণ নয়” ধরনের।] কমিউনিষ্টরা ভেবেছিল, “পুজিবাদ বা ধনিক শ্রেণী” কে মুছে ফেলতে পারলেই মোক্ষ লাভ হবে। আর এর পরিণতি হয়েছিল এক খোদ সোভিয়েত রাষ্ট্রকে সুরক্ষা, প্রতিরক্ষা দিয়ে টিকিয়ে রাখার কাজে ওর নিজস্ব ষ্ট্রাটেজিক বৈদেশিক স্বার্থ অনুযায়ী ব্লকের বাকি সব রাষ্ট্রের নিজ নিজ স্বার্থকে বিসর্জন দিয়ে, পিছনে ফেলে সোভিয়েত ইউনিয়নের এক স্যাটেলাইট রাষ্ট্র হিসাবে নিজেকে নামিয়ে নেয়া। পরবর্তীতে ষাটের দশকে নয়া-চীন এটাতে বিদ্রোহ করে বসল, অভিযোগ তুলল এটা সোভিয়েত রাষ্ট্রের “সামাজিক সাম্রাজ্যবাদ” হয়ে যাওয়া। কিন্তু মজার কথা হলো, আবার সে নিজেই চীনা বলয়ের এক ব্লক তৈরি করে নিজের ব্রান্ডের কমিউনিজমের নামে একই চীনা রাষ্ট্রের ষ্ট্রাটেজিক বৈদেশিক স্বার্থ রক্ষার ভূমিকায় নেমে পড়েছিল । এর সবচেয়ে ভাল উদাহরণ, ১৯৭১ এর বাংলাদেশের নিজ স্বার্থ এভাবেই স্থানীয় চীনা কমিউনিষ্ট পার্টিগুলোর হাতে চীনা রাষ্ট্রের স্বার্থের নিচে চাপা পড়ে বলি হয়ে গিয়েছিল।

আমার সার কথা হলো, রাষ্ট্র ধারণা – কি রাষ্ট্র আমরা চাচ্ছি গ্লোবাল পরিস্থিতিতে সে ধারণার মানে কি দাঁড়ায় সেসব নিয়ে বিস্তর চিন্তাভাবনা হোমওয়ার্ক তত্ত্বীয় প্রস্তুতির কাজটা আমরা কেউ এড়াতে পারব না। এটা ষ্টেজে মেরে দেবার বিষয় না। ফলে ইসলামি রাজনীতিও কি একই “কমিউনিষ্ট” অভিজ্ঞতা ও পরিণতি নিতে যাচ্ছে? ইজিপ্টের পরিস্থিতি পরিণতি দেখে, ব্রাদারহুডের রাষ্ট্র ও ক্ষমতা ধারণা বুঝবার অপরিণত রাজনীতি দেখে এই আশঙ্কা আমি দেখি। এমনিতেই ইসলামি রাজনীতিতে রাষ্ট্র প্রসঙ্গে এক অমীমাংসিত বিতর্ক আছে যে, কোন মুসলমান রাষ্ট্রের [রুলার বা শাসক অর্থে] আনুগত্য করতে পারে কি না? সংক্ষেপে একে “আনুগত্য বিতর্ক” নামে ডাকতে পারি। এটুকু বুঝি, যুগের পর যুগ ব্যাপারটাকে অমীমাংসিত করে ফেলে রাখতে পারি না। এটা আত্মঘাতি। তাই তর্ক-বিতর্ক উস্কে দেবার জন্য আমি মোরসির একটা বক্তৃতা যেটা গত শুক্রবার তাঁর শপথ নেবার আগের দিন তাহরির স্কয়ারের জমায়েতে তিনি দিয়েছিলেন সেটা সামনে আনতে চাই। এই বক্তৃতার গুরুত্ব অনুভব করে ফেসবুকে আমি এর ভিডিও লিঙ্ক দিয়েছি। যাতে বডি ল্যাঙ্গুয়েজসহ তা বুঝা যায়। আগ্রহীরা তা দেখতে পারেন। ওর সারকথা হলো,

In the context before sworn in as Egypt’s president Mohamed Morsi : “I am here because of you. No institution, no Authority none can be above this will, the will of you, your will. You are the source of power. The nation is the source of power. The nation is the one to decide, the nation is the one to give unity, nation is the one to give appoint and hire and the nation is the one to fire…….” – Historical speach in Tahrir square.

এই বক্তৃতায় মোরসি প্রতীকীভাবে তাহিরর স্কয়ার ও ঐ মাঠের জনগণকে তাঁর ক্ষমতার উৎস বলে সকলকে স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন। তিনি জনগণের ক্ষমতার প্রেসিডেন্ট। জনগণের ইচ্ছা আকাঙ্ক্ষার প্রতীক তিনি। ফলে যে রাষ্ট্রের তিনি প্রেসিডেন্ট সেই রাষ্ট্র জনগণের নিজেরই ইচ্ছা আকাঙ্ক্ষা। ফলে “রাষ্ট্র মানে আনুগত্য” এই আনুগত্য কথার এক বিশেষ অর্থ তিনি দাড় করিয়ে ফেলেছেন ইতোমধ্যেই। ব্যাপারটা হয়ে গেছে নিজের ইচ্ছা আকাঙ্ক্ষার প্রতিরূপের প্রতি নিজের আনুগত্য প্রকাশ। যেটা মুসলমান পরিচয়ে বা ইসলামের চোখে অসঙ্গতির নয় এমন একটা মানে করা যায়। ফলে আনুগত্য বিতর্কের এক প্রাকটিক্যাল সমাধান মোরসি নিজে এবং তাঁর মুসলমান জনগণের সম্পর্ক আর এর ভিতর দিয়ে নিজেকে, নিজের ক্ষমতাকে ব্যাখ্যা করার উপায় বের করতে হয়েছে তাঁকে; বিতর্কের এক প্রাকটিক্যাল সমাধান, পথের ইঙ্গিত এখানে এসেছে আমরা দেখতে পাচ্ছি।

যদিও প্রশ্ন উঠতে পারে, এটা কি মোরসির কৌশলী কথা, নাকি ক্ষমতা রাষ্ট্র আনুগত্য প্রসঙ্গে তাঁর নীতিগত অবস্থান? আবার এই অবস্থান কি কেবল তাঁর নিজের? ব্যক্তিগত ও প্রেসিডেন্ট হিসাবে, বিশেষ পরিস্থিতি SCAF-এর অধীনের প্রেসিডেন্ট তিনি তাই? এর সাথে পার্টি ব্রাদারহুড এই অবস্থান নিজেরও বলে স্বীকার করে কি না? এসব বহু প্রশ্নের জবাব কি তা আমরা এখনও জানি না।

রাষ্ট্র ও ক্ষমতা প্রসঙ্গে ইসলামি রাজনীতির সঙ্কট নিয়ে মূল কথা আপাতত এতটুকুই। তবে একটা সহযোগী প্রশ্ন আছে। প্রশ্নটা হলো, ব্রাদারহুডের SCAF-এর হাতে ট্রানজিশনাল ক্ষমতা ছেড়ে দেয়া ও মেনে নেওয়া – এই ব্যাপারটা কি শ্রেফ রাষ্ট্র ও ক্ষমতা ধারণা না বুঝা হোমওয়ার্ক না করার থেকে জন্ম নেয়া? আমার জবাব হবে, না; অন্য আরও বড় কারণ আছে। সেদিকটা এখানে এখনও আনিনি। সেটা গ্লোবাল দিক বা ফ্যাক্টর। সেটা আমরা খুজে পাব, আমেরিকান চলতি ষ্ট্রাটেজিক ও বৈদেশিক নীতি, ইসলাম ইস্যুটাকে নিজের নিরাপত্তার ইস্যু হিসাবে মনে করা (আগের বুশের আমল থেকে চলে আসা ওয়ার অন টেররের সেকুলারিজমের আড়ালে দুনিয়াকে নিজের পক্ষে নিয়ে নিজ রাষ্ট্র নিরাপত্তা নিশ্চিত করার উপায় করে নেবার লাইন – যেটা ছিল এর বিপরীত লাইন) সেই সুত্রে RAND এর ইসলামি প্রজেক্ট বা গ্লোবাল কারযাভি ইসলাম প্রসঙ্গের ভিতরে। এনিয়ে আলাপ করতে করতে পরের পর্ব শুরু করার ইচ্ছা রাখি।